fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

 ‘আজকের দিনেই শুরু হয়েছিল ২৬ দিনের সিঙ্গুর-অনশন’, কৃষক আন্দোলনে সমর্থন জানিয়ে টুইট মমতার

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: নয়া কৃষি আইনের বিরোধিতা দেশজুড়ে কৃষকদের প্রতিবাদে রীতিমতো বিপাকে কেন্দ্রীয় সরকার। আর কৃষকদের সমর্থনে সেই সুযোগকে কাজে লাগাতে এবার সিঙ্গুর অনশনের প্রসঙ্গ টেনে আনলেন মুখ্যমন্ত্রী। শুক্রবার সকালে তিনি টুইট করে জানালেন, আজকের দিনেই শুরু হয়েছিল ২৬ দিনের সিঙ্গুর-অনশন। সিঙ্গুরে কৃষিজমি আন্দোলনের কথা উল্লেখ করে শব্দের প্রতি সহমর্মিতা জানান তিনি।
এদিন কৃষকদের দিল্লি চলো অভিযানের সমর্থনে টুইটে তৃণমূলনেত্রী লেখেন, ‘জোর করে কৃষি জমি অধিগ্রহণ করা যাবে না, এই দাবি নিয়ে ১৪ বছর আগে, ২০০৬-এর ৪ ডিসেম্বর, কলকাতায় ২৬ দিনের অনশনে বসেছিলাম। বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনা না করেই রাক্ষুসে কৃষি আইন পাস করেছে কেন্দ্র। এই আইনের প্রতিবাদে আন্দোলনকারী কৃষকদের প্রতি আমার সহমর্মিতা জানাচ্ছি।’ ইতিমধ্যে নতুন কৃষি আইন প্রত্যাহার না হলে দেশ জুড়ে বিভিন্ন প্রান্তে আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
এরপর দলের তরফেও সাংবাদিক সম্মেলন করে তৃণমূল সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার বলেন, ‘১৫ বছর আগে সিঙ্গুর আন্দোলন ইস্যুতে অনশন করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কৃষকের পাশে লড়াইয়ে ছিলেন। এই আইনে মধ্যস্বত্বভোগীর কোনও জায়গা বাংলায় নেই। কৃষি আইন অসাংবিধানিক, রাষ্ট্রবিরোধী। সর্বশক্তি দিয়ে বিরোধিতা করবে তৃণমূল।’
এই প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের বিরোধিতা করে তিনি বলেন, ‘রাজ্যকে না জানিয়ে সব আইন কুক্ষিগত করছে কেন্দ্র। নতুন আইনে বিতর্ক হলে এসডিও অফিসে যেতে হবে চাষিদের। চাষিরা কি করে কাজ ছেড়ে যাবে? স্বাধীন ভারতকে পরাধীন করার চক্রান্ত। কর্পোরেট সংস্থার হাতে দেশ বেচার ষড়যন্ত্র।’ সবমিলিয়ে এটা পরিষ্কার, কেন্দ্র কৃষি আইন প্রত্যাহার না করলে একুশে বিধানসভা ভোটের আগে এটিকে রাজনৈতিক ইস্যু হিসেবে বড়োসড়ো মাত্রায় নিয়ে যেতে চায় তৃণমূল।

Related Articles

Back to top button
Close