fbpx
দেশহেডলাইন

নজিরবিহীন, ভূমিপুজোর জন্যে শ্রীলঙ্কা-সহ দেশের ১৫১ নদীর জল বয়ে অযোধ্যায় এই দুই বৃদ্ধ!

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: আগামী ৫ আগস্ট রাম মন্দিরের জন্য ভূমিপুজো হবে। এদিন শিলান্যাস করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর এই নিয়ে দেশ জুড়ে রাম ভক্তদের উৎসাহ চরমে উঠেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অযোধ্যায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে জল এবং মাটি। বাংলারও বহু জায়গা থেকে মাটি যাচ্ছে অযোধ্যার জন্য। এরই মাঝে নজির গড়লেন দুই বৃদ্ধ ভাই।

জানা গিয়েছে, তাঁরা দেশের বাইরে থেকে জল ও মাটি এনে সকলে চমকে দিয়েছেন। এমনই কীর্তি করে চমক দিয়েছেন দুই ভাই রাধেশ্যাম পাণ্ডে এবং বিশিষ্ট শব্দ বিজ্ঞানী মহাকবি ত্রিফলা।  জানা গিয়েছে, ১৫১ টি পবিত্র নদী এবং পাঁচটি সমুদ্রের সমুদ্রের জল নিয়ে পৌঁছে গিয়েছেন তাঁরা। গঙ্গা, যমুনা এবং ব্রহ্মপুত্রের মতো বড় বড় নদীর জল রয়েছে তাঁদের ঝুলিতে। সঙ্গে রয়েছে তিন সমুদ্রের জল। কেবলমাত্র দেশই নয়, এই দুই রাম ভক্ত ভাই রামের শত্রু রাবনের দেশ অর্থাৎ শ্রীলঙ্কার ১৫টি নদী এবং ১৬টি পবিত্র স্থানের মাটিও সংগ্রহ করে এনেছেন।

             আরও পড়ুন: অযোধ্যার উদ্দেশ্যে মালদার হনুমান মন্দির থেকে পাঠানো হল মাটি

রাধেশ্যাম পাণ্ডে  জনিয়েছেন, ‘১৯৬৮ সাল থেকে এই জল এবং মাটি সংগ্রহ করা শুরু করেছিলাম। ২০১৯ সাল পর্যন্ত পায়ে হেঁটে, সাইকেল চালিয়ে, ট্রেনে এবং বিমানে চড়ে অনেক জায়গায় ঘুরেছি শুধুমাত্র রাম মন্দিরের জন্য জল-মাটি সংগ্রহ করবে বলে’। তাঁর সঙ্গে অযোধ্যায় যাওয়া শব্দ বিজ্ঞানী মহাকবি ত্রিফলা চোখে দেখতে পান না। ৭০ বছরের ওই বৃদ্ধ জল-মাটি সংগ্রহে বিশেষ সাহয্য করেছেন বলে জানিয়েছেন রাধেশ্যাম।

 

উল্লেখ্য, গোটা দেশের সঙ্গে বাংলা থেকেও রবিবার অযোধ্যার উদ্দেশে পাঠানো হয় রাজ্যের বিভিন্ন দেবস্থানের মাটি ও জল। বিশ্ব হিন্দু পরিষদের এক কর্মকর্তা এ দিন গাড়িতে জল-মাটি নিয়ে অযোধ্যা রওনা হন। ৫ অগস্ট, বুধবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অযোধ্যায় রাম মন্দিরের শিলান্যাস করবেন। মন্দির নির্মাণের কাজে দেশের নানা প্রান্তের হিন্দু দেবস্থানের জল-মাটি ব্যবহার করা হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। এ রাজ্য থেকে পাঠানো হয়েছে, গঙ্গাসাগর, কালীঘাট, দক্ষিণেশ্বর, নবদ্বীপ, ত্রিবেণী সঙ্গম, কলকাতার ভূতনাথ মন্দিরের মাটি ও জল। উত্তরবঙ্গেরও কয়েকটি মন্দির ও নদীর জল, মাটি অযোধ্যায় পাঠানো হয়।

 

 

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের তরফে জানানো হয়েছে শিলান্যাস অনুষ্ঠান চলবে সকাল ১১টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত। প্রধানমন্ত্রীর হাতে রাম মন্দিরের শিলান্যাস পর্ব দূরদর্শনে দেখানো হবে। ওইদিন টিভির পর্দায় সরাসরি সম্প্রচার দেখতে বলে পাড়ায় পাড়ায় প্রচার চালাচ্ছে পরিষদ। শিল্যান্যাস অনুষ্ঠানে গোটা দেশের মানুষকেই অযোধ্যায় সামিল করার পরিকল্পনা ছিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদের।

Related Articles

Back to top button
Close