fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

গোষ্ঠী সংক্রমণের কথা স্বীকার করে সপ্তাহে ২দিন সম্পূর্ণ লকডাউনের ঘোষণা নবান্নের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: প্রতিদিনই রাজ্যে হু হু করে বাড়ছে করোনা  সংক্রমণ। কোনওভাবেই তাতে লাগাম পড়ানো যাচ্ছে না। যা দেখে বিশেষজ্ঞরা আগেই আশঙ্কা করেছিলেন, বাংলায় গোষ্ঠী সংক্রমণ হয়েছে। এদিন তা মেনে নিলেন স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। কেরলে পর বাংলা, যারা গোষ্ঠী সংক্রমণের কথা স্বীকার করে নিল। এবার সংক্রমণে রাশ টানতে গোটা রাজ্যে সপ্তাহে দু’দিন সম্পূর্ণ লকডাউন হবে। সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, চলতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ও শনিবার হবে সম্পূর্ণ লকডাউন। সোমবার নবান্নে এক সাংবাদিক সম্মেলনে রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, এবার থেকে আর টানা নয় সপ্তাহে ২ দিন করে সারা রাজ্যজুড়ে সম্পূর্ণ লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। কারণ, রাজ্যের বেশ কিছু জায়গায় একটি ক্লাস্টারে বা গোষ্ঠীতে সংক্রমণের হার অত্যাধিক বেশি। সেই কারণেই এই সিদ্ধান্ত।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় , মুখ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, ডিজি ও সিপি বৈঠকে বসেছিলেন। সেখানে বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের রিপোর্ট নিয়ে আলোচনা হয়। সেখানে সিদ্ধান্ত হয় সংক্রমণের শৃঙ্খল ভাঙতে, সপ্তাহে দুদিন করে লকডাউন করা জরুরী। এরপরই এই সপ্তাহে কবে কবে লকডাউন হবে তা ঘোষণা করা হল। একইসঙ্গে আগামী সপ্তাহে বুধবারও লকডাউন থাকবে বলে জাননো হয়। আরেকটি কবে লকডাউন হবে, তা সোমবার বৈঠক করে জানানো হবে। আপাতত আগস্ট মাস অবধি এই নিয়ম চলবে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব।  তবে কনটেনমেন্ট জোনে যে লকডাউন তা আপাতত ৩১ জুলাই পর্যন্ত জারি থাকবে বলেই জানান স্বরাষ্ট্রসচিব। কিন্তু চলতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার ও শনিবার করা হচ্ছে এই লকডাউন। এরপরের সপ্তাহে কবে হবে তা সোমবার বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: এবার একটু অন্যরকম, ভার্চুয়াল লাইভে ২১ জুলাই ‘শহিদ স্মরণ’

স্বরাষ্ট্রসচিব জানান, রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে করোনা গোষ্ঠী সংক্রমণ যে দিকে এগোচ্ছে, তাতে লকডাউন ছাড়া অন্য কোনও পথ নেই। তাই এবার থেকে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঙ্গে কথা বলে প্রতি সোমবার রাজ্য সিদ্ধান্ত নেবে সেই সপ্তাহে কবে কবে সম্পূর্ণ লকডাউন হবে। তারপর আগে থাকতেই তা জানিয়ে দেওয়া হবে। ওই দু’দিন সারা রাজ্যের অফিস-কাছারি, স্কুল-কলেজ, পরিবহণ ব্যবস্থা সবই বন্ধ থাকবে। এর সঙ্গে কনটেনমেন্ট এলাকার লকডাউন যেমন চলছে তেমনি চলবে।

পাশাপাশি, স্বরাষ্ট্রসচিব এদিন ফের জানান, রাজ্যে করোনার সংক্রমণ নিয়ে খুব একটা চিন্তার কিছুই নেই। মাত্র ৪-৫ শতাংশ রোগীকে নিয়ে চিন্তা থাকছে, তাঁদের হাসপাতালে স্থানান্তরিত করার প্রয়োজন হচ্ছে। কিন্তু বাকি রোগীদের ক্ষেত্রে অত চিন্তার কিছুই নেই। তাঁদের জন্য বাড়ি ও সেফ হোম অনেক বেশি কাজের। সেই কারণেই টেলি মেডিসিন ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। পাশাপাশি, করোনা সংক্রান্ত সবরকম সহায়তার জন্য রাজ্যজুড়ে খোলা হয়েছে ইন্ট্রিগেটেড হেল্পলাইন নম্বর। ৬০ টি টেলিফোন থাকছে এই লাইনের মধ্যে। এর নাম্বার হল ০৩৩ ২৩৪১ ২৬০০ এবং ১৮০০ ৩১৩ ৪৪৪ ২২২।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close