fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আলি হোসেনের হাত ধরে ৩০০টি সংখ্যালঘু পরিবার যোগ দিল বিজেপিতে

শ্যামল কান্তি বিশ্বাস, রানাঘাট: ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ’ কর্মসূচি রূপায়ণে রাজ্যের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নাগরিকবৃন্দের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে জমে উঠেছিল বিজেপির গতকালের বিকেলের সভা। ভারতীয় জনতা পার্টি নদীয়া জেলা দক্ষিণের উদ্যোগে হাঁসখালি থানা এলাকার সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকা জগন্নাথপুরের সভা শেষ পর্যন্ত মহা সমাবেশে পরিণত হয়। এলাকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায় সহ সমাজে আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া শ্রেণী বিশেষত কৃষক, ক্ষেতমজুর সহ প্রান্তিক শ্রমজীবী মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো।

বিজেপি সংখ্যালঘু সেলের রাজ্য সভাপতি মোঃ আলি হোসেন সহ নদিয়া জেলা দক্ষিণের সাংগঠনিক সভাপতি অশোক চক্রবর্তী,৩৮ নং জেড পি-র বর্ষীয়ান জননেতা এক্স,ডি,সি(সীমান্ত রক্ষী বাহিনী) সুনীল কুমার বিশ্বাস সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে সভাটি অন্যমাত্রা পায়। দু’দিনের সফরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এখন পশ্চিমবঙ্গে, বাঁকুড়া জেলায় একাধিক কর্মসূচি শেষ করে কলকাতায় ফিরবেন, ঘটনাপ্রবাহের এমনই সন্ধিক্ষণে দলের কর্মী সমর্থকেরা উত্তেজনায় টকবক করছে। রাঢ় বঙ্গে অমিত জী ২০২১ এর নির্বাচনী আবহের সুর বেধে দিয়েছেন,অমিতজীর পালে গা ভাসিয়ে গতকালের নদিয়ার জনসভায় একের পর এক বক্তা রাজ্যের গণতন্ত্র হত্যাকারী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার কে তুলোধোনা করেন। শুরুতেই সংখ্যালঘু সেলের রাজ্য সভাপতি মোঃআলি হোসেন তার সংক্ষিপ্ত ভাষণে মুসলিম তোষণের প্রসঙ্গ টেনে রাজ্য সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন।

 

বাংলার মুসলিম সমাজকে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখোশ খুলে দেন তিনি, তুষ্টি করণ সহ তোষণের নোংরা রাজনীতির বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেন তিনি।আলি হোসেনের আলোচনায় উঠে আসে, তিন তালাক আইন, কেন্দ্রের কৃষি সুরক্ষা আইন, কৃষাণ সমৃদ্ধি যোজনা, আয়ুষ্মান ভারত  প্রভৃতি একের পর এক কেন্দ্রীয় প্রকল্প এ রাজ্যের মমতা সরকার চালু না করায় বাংলার জনগণ কি ভাবে বঞ্চিত হচ্ছেন,তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেন মোঃ আলি হোসেন।  অন্যান্য বক্তাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নদিয়া জেলা দক্ষিণের সাংগঠনিক সভাপতি অশোক চক্রবর্তী,৩৮ নং জেড পি-র বর্ষীয়ান জননেতা (এক্স ডি সি সীমান্ত রক্ষী বাহিনী) সুনীল কুমার বিশ্বাস সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

সভা মঞ্চ থেকে এলাকার তিন শতাধিক মুসলিম পরিবার সহ তৃণমূল ও সিপিএম দল থেকে আরো শতাধিক কর্মী সমর্থক অর্থাৎ সর্বমোট চার শতাধিক নতুন সদস্য-সদস্যা বিজেপি পরিবারে যোগদান করেন। সংখ্যালঘু সেলের রাজ্য সভাপতি মোঃ আলি হোসেন ও সাংগঠনিক সভাপতি অশোক চক্রবর্তী, সকলের হাতে ভারতীয় জনতা পার্টির পতাকা তুলে দেন।

Related Articles

Back to top button
Close