fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মালদায় একদিনে করোনা আক্রান্ত ৪৪ জন!

জেলা প্রতিনিধি, মালদা: মালদায় একদিনে করোনা আক্রান্ত হল ৪৪ জন। এখনও পর্যন্ত মালদা জেলায় সংক্রমণের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল ১৯৯। আক্রান্তদের কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি ব্যবস্থা করানো হয়েছে স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে। এই প্রথম মালদা জেলায় একইদিনে এত বিপুল পরিমাণে আক্রান্তের সংখ্যা রিপোর্ট সরকারিভাবে জানানো হয়েছে। এতে করে জেলায় করোনা নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

উল্লেখযোগ্য হিসাবে, করোনায় যারা নতুন করে সংক্রামিত হয়েছেন, তাদের মধ্যে ইংরেজবাজার ব্লকের আক্রান্তের সংখ্যা সব থেকে বেশি। ৪৪ জনের মধ্যে ইংরেজবাজার ব্লকে ২৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতরের উদ্বেগ বেড়েছে। বৃহস্পতিবার আক্রান্তের সংখ্যা ছিল না। কিন্তু শুক্রবার এক দিনেই হঠাৎ করে ৪৪ জন এই সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ায় জেলার বিভিন্ন ব্লকে আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

জেলা প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার ৬০৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তার মধ্যে ৪৪ জনের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। আক্রান্তদের মধ্যে ইংরেজবাজার রয়েছেন ২৭ জন , চাঁচল ১ এবং ২ ব্লকে রয়েছেন ১জন করে মোট ২ জন। গাজোল ব্লকে ৫ জন, হরিশ্চন্দ্রপুর ১ এবং ২ ব্লকে রয়েছেন ১ জন করে ২ জন। কালিয়াচক ২ ব্লকের ২ জন, মানিকচক ব্লকে রয়েছেন ৩ জন, রতুয়া ১ এবং ২ ব্লকের রয়েছেন ৩ জন।

জেলা প্রশাসনের পদস্থ কর্তারা জানিয়েছেন , ভিন রাজ্য থেকে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের মূলত নমুনা সংগ্রহের পরে করোনা সংক্রমণের ঘটনা বেশি করে বাড়ছে। তা নিয়ে মানুষের মধ্যে কিছুটা উদ্বেগও ছড়াচ্ছে।

এদিকে মালদা জেলায় পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে বিভিন্ন রাজ্য থেকে ট্রেন এসে পৌঁছাচ্ছে। কিন্তু টাউন স্টেশনে ঢোকার মুখেই চেন টেনে মাঝরাস্তায় ট্রেন থেকে পালিয়ে যাচ্ছে বহু ভিন রাজ্য ফেরত শ্রমিকেরা বলে অভিযোগ। যার কারণে জেলায় ভিন রাজ্য ফেরত শ্রমিকদের সঠিক ভাবে করোনা মোকাবিলায় লালারসের নমুনা সংগ্রহ করতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হচ্ছে জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতরের কর্তাদের।

এদিকে অভিযোগ উঠেছে, জেলায় এত বিপুল পরিমাণে করোনা সংক্রমণ আক্রান্তের দেখা দিলেও অবাধে যানবাহন চলাচল, যত্রতত্র বাজার হাট বসার বিষয়ে উদাসীন পঞ্চায়েত, প্রশাসন এবং পুরসভা। লকডাউনের কোন বিধি নিষেধ মানা হচ্ছে না এসব ক্ষেত্রে। মালদায় বিভিন্ন বাজার এলাকায় সকাল থেকে উপচে পড়ছে সাধারণ মানুষের ভিড়। সন্ধ্যার পর দোকানপাট বন্ধ রাখার কথা বলা হলেও, কার্যত অনেকেই সরকারি নির্দেশ মানছেন না। এমনকি বিভিন্ন এলাকার বাজারে মানুষ অবাঞ্চিত ভাবে ভিড় করছেন। যার কারণে এই সংক্রমণ ছড়ানোর আতঙ্কে ভুগছেন জেলা সিংহভাগ মানুষ।

যদিও এ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া জানিয়েছেন, সরকারি নির্দেশ মেনে জমায়েত ঠেকাতে মালদার বিভিন্ন বাজার হাট এলাকাগুলিতে পুলিশ নজরদারি চালাচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close