fbpx
কলকাতাহেডলাইন

মন্দির নির্মাণে পরিবার পিছু ৫০ হাজার টাকার হুমকি, প্রতিবাদ করায় বেধড়ক মার অন্তঃসত্ত্বাকে

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: খোদ মহালয়ার দিনে মন্দির নির্মাণের নামে অতিরিক্ত টাকা চাওয়ার প্রতিবাদ করে যে এভাবে নিগৃহীত হতে হবে, তা ভাবতেও পাননি পর্ণশ্রীর বকুলতলা রোডের পরিবার। এমনকি আহত স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে নিগৃহীত হতে হল তাঁর অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকেও। গোটা ঘটনা জানিয়ে পরিবার পর্ণশ্রী থানায় অভিযোগ জানালেও এই ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি।

সূত্রের খবর, কিছুদিন আগে ক্লাব মিটিংয়ে বসে পর্ণশ্রীর বকুলতলা রোডের ধর্মরাজ মন্দিরের কাছে “মিতালি সংঘ” ক্লাবের সদস্যরা এলাকায় একটি মন্দির তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেন। ওই এলাকার সামনেই রয়েছে একটি আবাসন, যেখানে ১০ টি পরিবারের বাস। অভিযোগ, মন্দির তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর কয়েকদিন আগে ক্লাবের সদস্যরা পাশের একটি আবাসনে গিয়ে ঘোষণা করে দেন, আবাসনের প্রত্যেক বাসিন্দাকে মন্দির তৈরি করার জন্য ৫০ হাজার টাকা করে চাঁদা দিতে হবে। না দিলে ফল ভালো হবে না এমন হুমকিও দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

কিন্তু লকডাউনের বাজারে অত টাকা দেওয়া সম্ভব ছিলনা কোন পরিবারের পক্ষেই। তাই বাসিন্দারা ঠিক করেন, সকলে মিলে ক্লাব সদস্যদের ২৫ হাজার টাকা মতো চাঁদা তুলে দেওয়া হবে। কিন্তু বুধবার ওই আবাসনে এসে
এই কথা শুনেই প্রবল রেগে যান ক্লাব সদস্যরা। তারা আবাসনের সঙ্গে বাসিন্দাদের হুমকি দিতে শুরু করেন।

এদিকে এই কথা সহ্য করতে না পেরে প্রতিবাদ করেন আবাসনেরই এক বাসিন্দা। অভিযোগ, ওই ব্যক্তিকে বেধড়ক মারধর করেন ক্লাব সদস্যরা। স্বামীকে মার খেতে দেখে তাঁর অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বাঁচাতে গেলে তাঁকেও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। তাকে মাটিতে ফেলে ঘুষি লাথি মারা হয় বলে অভিযোগ। তারপরে ক্লাব সদস্যরা সকলকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়। ঘটনার পর পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হলেও আতঙ্কিত গোটা আবাসনের বাসিন্দারা।

Related Articles

Back to top button
Close