fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার ৭ বছর পরেও হয়নি কর্মসংস্থান, ডেপুটেশন যুবশ্রীদের

প্রদীপ্ত দত্ত , সিউড়িঃ ২০১৩ সালের ৩ অক্টোবর নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে যুবশ্রী প্রকল্পের উদ্ধোধনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন উৎসাহ ভাতার পাশাপাশি এক বছরের মধ্যে সকল যুবশ্রীদের সরকারি স্থায়ী কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা করে দেওয়া হবে । ৭ বছর পার হয়ে গেলেও আজ পর্যন্ত কোন সরকারি কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা হয়নি।

 

 

১৫০০ টাকার যে উৎসাহ যুবশ্রী ভাতা বেকার দের দেওয়া হচ্ছিল সেটাও অনেকের বন্ধ হয়ে গেছে। বিশেষ করে যেসব মহিলারা বিবাহিত হয়ে অন্য জায়গায় চলে গেছেন বা যারা প্রশাসনিক নির্দেশাবলী ঠিকমতো বুঝতে না পেরে ফর্ম ঠিকভাবে ভরতে পারেনি। সরকারের তরফ থেকে এই সমস্যা সমাধানে কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক জানিয়েছিলেন পশ্চিম বঙ্গ সরকারের গ্ৰুপ ডি ,গ্ৰুপ সি সহ নানা বিভাগে যুবশ্রীদের সরকারি চাকুরি দেওয়ার ব্যাবস্থা করা হবে। লকডাউনের কারণে পশ্চিমবঙ্গের বিপুল যুবশ্রীরা শোচনীয় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন।

 

 

যুবশ্রী এমপ্লয়মেন্ট ব্যাঙ্ক কর্মপ্রার্থী সমিতির বীরভূম জেলা সম্পাদক জিয়ারুল শেখ জানান , ” মুখ্যমন্ত্রী প্রকাশ্যে চাকরি দেবার কথা বললেও ৭ বছর পেরিয়ে গেছে কিন্তু কোন চাকরির ব্যাবস্থা হয়নি । শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটকের কাছে দুবার গেছি , তিনি আশ্বাস দিলেও কোন ব্যাবস্থা নেওয়া হয়নি । ” সেইসঙ্গে তিনি জানান ২০১৯ সালে যুবশ্রীদের পক্ষ থেকে চাকরির দাবিতে নবান্ন অভিযান হয় । উল্টে সেখানে সরকার ৩৪ জনকে গ্ৰেপ্তার করে অন্যায়ভাবে । সিউড়িতেও একই ভাবে জেলা শাসকের কাছে ডেপুটেশন দেয় যুবশ্রী সংগঠনের বীরভূম শাখা ২০১৯ সালে।  বর্তমানে লকডাউনের কারণে অনলাইনে জেলা শাসকের দপ্তরে ডেপুটেশন পাঠানো হয়। জেলা শাসকের দপ্তরে ডেপুটেশন পাঠানো হয়েছে । কিন্ত প্রাপ্তি স্বীকার করে কোন উত্তর আসেনি। তিনি আরও জানান যদি বেকার যুবকদের দাবি না মানা হয় , লকডাউন উঠে যাবার পর আমাদের সংগঠন বৃহত্তর আন্দোলনে নামবে।

Related Articles

Back to top button
Close