fbpx
অসমদেশহেডলাইন

অসমে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৭০ লক্ষ মানুষ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  অসমে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিয়েছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে প্রবল বৃষ্টিতে ব্রহ্মপুত্র নদ ফুঁসছে। বিপদ সীমার উপর দিয়ে বইছে। যার নির্যাস, ২৬টি জেলা জলের তলায়। কেন্দ্রীয় জল কমিশন থেকে জানানো হয়েছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যার মধ্যে অসমে ব্রহ্মপুত্র নদে জলস্তর আরও বাড়তে পারে। দু’সপ্তাহ আগে ব্রহ্মপুত্র দু’কুল ছাপিয়ে ২৫০০ গ্রামকে প্লাবিত করে। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় গোয়ালপাড়া জেলা। সেখান বিপদে পড়েন ৪ লক্ষ ৫৩ হাজার মানুষ। এছাড়া বরপেটায় ৩ লক্ষ ৪৪ হাজার ও মরিগাঁওতে ৩ লক্ষ ৪১ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সব মিলিয়ে রাজ্যে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ৭০ লক্ষ মানুষ। ভয়াবহ বন্যায় অসমের ৩৩ টি জেলার মধ্যে ২৪ টিই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জল কমিশন থেকে বলা হয়েছে, ধানসিঁড়ি, জিয়া ভারালি, কোপিলি, বেকি, কুশিয়ারা এবং সংকোশ নদীর জলও বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে।

গ্রামের পর গ্রাম, চাষের জমি, বন্যপ্রাণী ব্রহ্মপুত্রের গ্রাসে। পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ যে, মানুষ ও বন্যপ্রাণী একই ছাদের তলায় আশ্রয় নিচ্ছে প্রাণের তাগিদে। ইতিমধ্যেই বন্যায় মৃতের সংখ্যা সরকারি হিসেবে ৮৫। অসম স্টেট ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অথরিটির দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, মৃত্যু হয়েছে, বরপেটা, বাকসা, ধুবড়ি, মারিগাঁও এবং নগাঁওতে। বেসরকারি হিসেবে সংখ্যাটা আরও বেশি বলেই আশঙ্কা।  কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যানে ৮৬টি বন্যপ্রাণীর মৃত্যু হয়েছে বন্যায়। ৯৫ শতাংশের বেশি অংশই জলের নীচে। গত ২৪ ঘণ্টায় স্টেট ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্স, জেলা প্রশাসন ও সাধারণ মানুষ মিলে দুর্গত এলাকা থেকে ৩৬৬ জনকে উদ্ধার করেছে। বন্যায় ঘরবাড়ি হারিয়ে ৫২১ টি ত্রাণশিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন ৫০ হাজার মানুষ। বন্যায় ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কাজিরাঙা ন্যাশনাল পার্ক। অসমের কৃষিমন্ত্রী অতুল বরা জানিয়েছেন, জলে ডুবে মারা গিয়েছে ন’টি গণ্ডার। সব মিলিয়ে কাজিরাঙায় মারা গিয়েছে ১০০ টি বন্যপ্রাণী। তাদের মধ্যে আছে ৩৬ টি হরিণ, তিনটি বুনো মোষ, একটি পাইথন, কয়েকটি বুনো শুয়োর ও একটি সম্বর।

আরও পড়ুন: চিন ইস্যুতে ফের প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করলেন রাহুল গান্ধী

অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনওয়াল বলেছেন, ‘একদিকে করোনা সংক্রমণ অন্যদিকে বন্যা। দু’টি চ্যালেঞ্জের সঙ্গে লড়তে হচ্ছে অসমকে। আমরা লড়াই চালিয়ে যাচ্ছি। বহু মানুষ ও গবাদি পশুকে বন্যাদুর্গত এলাকা থেকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে আনা হয়েছে।’ গত রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ফোনে সর্বানন্দ সোনওয়ালের সঙ্গে কথা বলেন। রাজ্যে কোভিড সংক্রমণ ও বন্যা পরিস্থিতি, দু’টি বিষয় নিয়েই তিনি জানতে চান। মুখ্যমন্ত্রীর অফিস থেকে বিবৃতি দিয়ে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এই বিপদের সময় তিনি অসমের মানুষের পাশে আছেন। রাজ্যের পরিস্থিতির ওপরে কেন্দ্রীয় সরকার, নজর রাখছে।

Related Articles

Back to top button
Close