fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আসেনি কোনও ফোন, চাওয়া হয়নি ওটিপিও, প্রাথমিক স্কুলের প্রধানশিক্ষিকার অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব ৬৫ হাজার টাকা

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: গ্রাহকের কাছে ব্যাঙ্কের নামে কোন ফোন আসেনি। চাওয়া হয়নি কোন ওটিপিও। তবু নিমেষের মধ্যে ৬৫ হাজার টাকা উধাও হয়ে গেল ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে। এমনই আশ্চর্যজনকভাবে একটি প্রাথমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষিকার অ্যাকাউন্ট ৬৫ হাজার টাকা লোপাট করল সাইবার অপরাধীরা। প্রাথমিক অনুমান, সাইবার অপরাধের সঙ্গে যুক্ত ” জামতাড়া গ্যাং” এই কাজ করেছে। আসানসোলের সালানপুরের প্রাথমিক স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা তথা বাম নেত্রী বহ্নি ঘোষের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে এই টাকা উধাওয়ের ঘটনাটি ঘটেছে।

জানা গেছে, বুধবার রাত ১১ টা ৪৮ মিনিট থেকে বৃহস্পতিবার ভোরের মধ্যেই ১৫ বার বহ্নি ঘোষের অ্যাকাউন্ট থেকে মোট ৬৫ হাজার টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে। ৫ হাজার টাকা করে ১১ বার, ৩ হাজার টাকা করে দুবার, ও ২ হাজার টাকা করে দুবারে এই টাকা তোলা হয়েছে। সালানপুরের রূপনারায়ণপুরে রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কের একটি শাখায় বহ্নিদেবীর স্যালারি বা বেতনের অ্যাকাউন্ট আছে। তা থেকেই এই টাকা উধাও হওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে। এখন ওই শিক্ষিকার অ্যাকাউন্টে পড়ে আছে মাত্র ১,৯০০ টাকা।

বহ্নিদেবীর ঋণ নেওয়া আছে এই ব্যাঙ্কের মাধ্যমে। সেই অ্যাকাউন্ট থেকে প্রতিমাসে ইএমআই কাটার পর তার মোবাইলে মেসেজ আসে।  তাতেই তিনি জানতে পারেন যে, ব্যাঙ্কের  অ্যাকাউন্টে আর কোনও টাকা নেই। এদিন তিনি বলেন, এরপর খোঁজ নিয়ে দেখি আমার অ্যাকাউন্ট থেকে ৬৫ হাজার টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে।

[আরও পড়ুন- তিন তালাক রদ আন্দোলনের মুখ ইসরাত জাহান পরিজনের হাতে নিগৃহীতা, নিন্দায় সরব লকেট]

ঘটনাটি সামনে আসতেই তিনি ব্যাঙ্ক ম্যানেজার ও পুলিশকে জানান। আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশের সাইবার ক্রাইম সেলে তিনি এদিন অভিযোগ করেছেন। বহ্নিদেবী বলেন, আমার মোবাইলে একটি ই-ওয়ালেটের অ্যাপ ডাউনলোড করা আছে। কিন্তু সেটি আমি আদৌ ব্যবহার করি না। তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন যে,  তার কাছে ব্যাঙ্ক সংক্রান্ত কোনও ফোন কল বা মেসেজ আসেনি। কোন ওটিপিও চাওয়া হয়নি। এরপরেও কিভাবে এক রাতের মধ্যে দফায় দফায় এতগুলো টাকা তার অ্যাকাউন্ট থেকে তুলে নেওয়া হলো তা তিনি বুঝতে পারছেন না। আসানসোল-দূর্গাপুর পুলিশের সাইবার ক্রাইম ও ডিডির এসিপি সৌমদ্বীপ ভট্টাচার্য্য বলেন, কোন অ্যাকাউন্টে ওই টাকা ট্রান্সফার হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। উনি কোথাও কোনওভাবে নিজের অ্যাকাউন্টের গোপন তথ্য শেয়ার করে ফেলেছেন কিনা তাও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তবে দ্রুত তদন্ত সম্পূর্ণ করে ইতিবাচক ফল মিলবে বলেই তিনি আশাবাদী।

 

Related Articles

Back to top button
Close