fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

খড়গপুর কলাইকুণ্ডায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু মাত্র ২২ বছরের জওয়ানের

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর: গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু মাত্র ২২ বছরের এক জওয়ানের। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার খড়গপুর কলাই কুণ্ডার বায়ুসেনা ঘাঁটিতে। যদিও বিষয়টি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছে বায়ুসেনা আধিকারিকরা। জানা গিয়েছে, মৃত জওয়ানের নাম সুমিত কুমার (২২)। ওই জওয়ানের বাড়ি হরিয়ানার ভিওয়ানি শহর লাগোয়া পটুয়াস এলাকায়। মাত্র দেড় বছর আগে বায়ুসেনার চাকরিতে নিযুক্ত হন তিনি। বর্তমানে সুরক্ষা বাহিনীতে কর্মরত ছিলেন।

কিন্তু কি কারণে ওই জওয়ান গুলিবিদ্ধ হলেন তা নিয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি। তবে তাঁর নিজের সার্ভিস রাইফেলের ইনসাস থেকেই যে গুলি ছুটেছিল সেটা নিশ্চিত হওয়া গেছে। পুলিশের সূত্রে খবর, গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার মাঝ রাতে। যখন বায়ু ঘাঁটিতে প্রহরারত ওই জওয়ানকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করেন তাঁর সহকর্মীরা, ততক্ষনে অবশ্য প্রচুর রক্ত ক্ষরণ হয়ে গেছে ওই জওয়ানের দেহ থেকে। কলাইকুণ্ডা বায়ুঘাঁটির ভেতরে জওয়ানকে পড়ে থাকতে দেখে তাঁর সঙ্গী জওয়ানরা দ্রুত দেহ ক্যাম্পের হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সেখানেই তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

এশিয়ার এই বৃহত্তম বায়ুঘাঁটির বিশাল চৌহদ্দি পাহারা দিতে হয় এই নিরাপত্তা রক্ষীদের। ফলে এক জনের চাইতে অন্য জনের দূরত্ব বেশ কিছুটা হয়ে থাকে। সেই কারণে ঘটনার সময় ওই জওয়ানের কাছাকাছি কেউ না থাকায় কী করে এই ঘটনা ঘটল তা জানা যায়নি। গুলি চলেছে জওয়ানের একদম বুকের বাঁ অংশে কালো বৃত্তের ওপর, ঠিক যার নিচেই হৃৎপিণ্ডের অবস্থান। গুলি হৃৎপিণ্ড ফুঁড়ে বগলের তলায় পাঁজরের অংশ দিয়ে বাইরে বেরিয়ে গেছে। বুকের ওই অংশে গান পাউডারেরও অস্তিত্ব মিলেছে ফলে বুঝতে অসুবিধা হয়না যে ব্ল্যাংক পয়েন্ট রেঞ্জ থেকেই গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনাটি ঘটেছে।

কিন্তু ওই জওয়ান কী আত্মহত্যা করেছেন? নাকি নিছকই দুর্ঘটনা! নাকি খুনের পেছনে অন্য কোনও ঘটনা ঘটেছে, এখনও তা পরিষ্কার নয়। যুবক মানসিক ভাবে বিধস্ত ছিলেন বা অবসাদে ভুগছিলেন এখনও এমন কোনও সূত্র নিশ্চিত করা যায়নি। খড়গপুর পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, তদন্ত খুবই প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। এখনও কোনও সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া সম্ভব নয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে না পাওয়া অবধি কিছুই সঠিক করে বলা সম্ভব নয়। তাঁর সঙ্গি ও বাড়ির লোকেদের সঙ্গে কথা বলা প্রয়োজন। যুবকের মোবাইল ফোনটিও যাচাই করা হবে তারপরই জানা যেতে পারে প্রকৃত ঘটনা।

ইতিমধ্যেই সোমবার দুপুরের পর ওই জওয়ানের পরিবারের সদস্যরা সুদূর হরিয়ানা থেকে বিমান যোগে কলকাতা হয়ে খড়গপুর পৌঁছেছেন। ময়নাতদন্তের পর প্রাথমিক প্রক্রিয়া সেরে সোমবার রাতেই বিমান যোগে তাঁর দেহ নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে এমনটাই পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close