fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বাড়ির অদূরে জঙ্গল থেকে যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, খুনের অভিযোগ পরিবারের

শুভেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়, আসানসোল :  আসানসোলের কুলটি থানার নিয়ামতপুর  ফাঁড়ির অন্তর্গত সীতারামপুর চবকার নামো পাড়াতে জঙ্গলে গাছ থেকে এক যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হল। শুক্রবার সকালে মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে গোটা এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। কুলটি থানার বেলরুই হরিমন্দির বাউরি পাড়ার বাসিন্দা মৃত যুবকের নাম রাজারাম বাউরি (৩০)। রাজারামকে তার পরিচিত কয়েকজন যুবক পরিকল্পনা করে শ্বাসরোধ করে খুন করে গাছে ঝুলিয়ে দিয়েছে বলে মৃতের দিদি ঠান্ডি বাউরি পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন। যুবকের পরিবারের সদস্য ও এলাকার বাসিন্দারা দোষীদের গ্রেফতার করার দাবিতে পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান। শেষ পর্যন্ত মৃত্যুর ঘটনায় সূত্র পেতে এলাকায় পুলিশ কুকুর আনা হয়।

 

মৃতদেহ উদ্ধার হওয়ার জায়গা থেকে আশপাশের এলাকায় পুলিশ কুকুর ঘোরে। কিন্তু তেমন কিছু পাওয়া যায়নি বলে জানা গেছে। প্রায় ৫ ঘন্টা পরে পুলিশ সেই মৃতদেহ উদ্ধার করে তা ময়নাতদন্তের জন্য আসানসোল জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসে। দুপুর তিনটের পরে ময়নাতদন্তের পরে মৃতদেহ পুলিশ যুবকের ভাই আদিত্য বাউরির হাতে তুলে দেয়।

 

এদিন সকালে, কলটির সীতারামপুর চবকা নামোপাড়ার অদূরে জঙ্গলের মধ্যে একটি গাছে এক যুবকের ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পাযন এলাকার মানুষেরা। দেহটি জনৈক রাজারাম বাউরির বলে এলাকার বাসিন্দারা জানান। ঘটনার খবর পেয়ে নিয়ামতপুর ফাঁড়ির পুলিশ এলাকায় আসে। আসেন রাজারামের দিদি, ভাই সহ অন্যান্যরা। তারা দেহটি সনাক্ত করেন। দেহটি উদ্ধার করতে এলে এলাকার মানুষেরা পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।    তারা  দাবী করেন, পুলিশ কুকুর এনে তদন্ত করতে হবে।

 

যুবকের পরিবারের লোকেদের অভিযোগ, একটি যুবতীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কের কারণে সীতারামপুর বাজার এলাকার বাসিন্দা মহঃ সমীর তরফে কাজুয়া নামে যুবকের সঙ্গে রাজারামের  আগে বেশ কয়েকবার ঝামেলা হয়েছে। সেই কারণেই রাজারামকে খুন করে গাছে  ঝুলিয়ে দেওয়া হয় বলে পরিবারের অভিযোগ। শেষ পর্যন্ত চাপে পড়ে পুলিশ কুকুর এনে তদন্ত শুরু করা হয় ।

রাজারামের দিদি ঠান্ডি বাউরি বলেন,  বৃহস্পতিবার বিকালে বাড়িতে  ঝগড়া হয়েছিল। তার পরে ভাই বাড়ি  থেকে বেরিয়ে যায়। রাতে আর বাড়ি ফিরে আসেনি। কাজুয়া নামে এক যুবক তার দিদির সঙ্গে প্রেমের  সম্পর্ক ছিলো বলে রাজারামকে মাঝেমধ্যেই  হুমকি দিত খুন করে দেবো বলে। রাজারামের দিদির দাবি কাজুয়াই এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

জানা গেছে, বাড়িতে বাড়িতে মজুরের কাজ করতো এই রাজারাম বাউরি। নিয়ামতপুর ফাঁড়ির পুলিশ জানায়, ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। পুলিশ কুকুর আনা হয়েছিলো। পরিবারের অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশের ডিসিপি (পশ্চিম) অনমিত্র দাস এদিন বিকালে বলেন, আসানসোল জেলা হাসপাতালে যুবকের দেহর  ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। রিপোর্ট পেলে জানা যাবে ঠিক কি কারণে ও কখন যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close