fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিবাহ বার্ষিকীতে বিনামূল্যের হাট বসিয়ে মানুষের পাশে বিধাননগরের এক দম্পতি

সঞ্জিত সেনগুপ্ত, শিলিগুড়ি: বক্সিগঞ্জের পদ্মা পাড়ে নয়, শুক্রবার হাট বসল শিলিগুড়ি মহকুমার বিধান নগর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের চেঙ্গা নদীর পাড়ে। করোনা সঙ্কটে মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে বসা এই হাট একে বারেই অন্য ধরনের। প্রয়োজন মতো জিনিস গ্রামের মানুষ ব্যাগ ভরে নিতে পারবেন কিন্তু, তার জন্য তাদের একটিও পয়সা দিতে হবে না। লকডাউনে চরম খাদ্য সঙ্কটে পড়া গরিব মানুষের পাশে দাঁড়াতে কোথাও বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী দেওয়া হচ্ছে, কোথাও আবার রান্না করা খাবার দেওয়া হচ্ছে। সেই জায়গায় এধরনের হাট বসানোর ভাবনা একটু ভিন্ন ধরনের।

বিধাননগরের বাসিন্দা নির্মল ঘোষ ও তাঁর স্ত্রী সোমা ঘোষের তাঁদের ১৩ তম বিবাহ বার্ষিকী পালন করলেন এই হাট বসিয়ে গরিব মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে। বৃহস্পতিবার ছিল তাঁদের বিবাহ বার্ষিকী। তাঁদের এই উদ্যোগ সফল করতে সহযোগিতা করেন কলকাতা পুলিশের কর্মী ও বিধাননগর ওয়েলফেয়ারের কর্ণধার বাপন দাস।

এদির সকালে হঠাৎ চেঙ্গা নদীর পাড়ে হাট বসতে দেখে এলাকার বাসিন্দারা অবাক হয়ে যান। খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন লকডাউনে খাদ্য সঙ্কটে থাকা গ্রামের গরিব মানুষের জন্য এই হাট এবং বিনামূল্যে জিনিস পাওয়া যাবে। যা গ্রামের মানুষ প্রথমে বিশ্বাস করতে চাননি।
নানা রকমের সবজি থেকে শুরু করে চাল, ডাল, আটা, তেল লবণ সবই ছিল।

নির্মল ঘোষ বলেন, ‘ লকডাউনে গরিব মানুষের কষ্ট দেখে তাদের জন্য কিছু করার জন্য আমরা ভাবছিলাম। সোশ্যাল মিডিয়ায় একদিন দেখলাম বিধাননগর ওয়েলেফেয়ারের বাপন দাস তাঁর বিবাহবার্ষিকীতে বিনামূল্যে গরিব মানুষকে সবজি বিতরণ করেছেন। সেখান থেকেই এধরনের হাট বসানোর সিদ্ধান্ত নেই।

Related Articles

Back to top button
Close