fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বৈদেশিক বাণিজ্য চালুর বিষয়ে মেখলিগঞ্জে প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক

 

 

 

বিজয় চন্দ্র বর্মন, মেখলিগঞ্জ: করোনা আবহে ভারত- বাংলাদেশ বৈদেশিক বানিজ্য চালুর বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহন করলো কোচবিহার জেলা প্রশাসন। ভারত – বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী আন্তর্জাতিক স্থল বানিজ্য কেন্দ্র চ্যাংড়াবান্ধায় ভারত- বাংলাদেশ বৈদেশিক বানিজ্য নিয়ে এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় ।

 

চ্যাংড়াবান্ধা ইমিগ্রেশন চেক পোষ্ঠ দিয়ে কবে, কিভাবে বৈদেশিক বানিজ্য চালু করা হবে সে নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে বলে সূত্রের খবর । এছাড়া বৈদেশিক বানিজ্যে ইতিমধ্যে পণ্য আমদানি করতে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে জেলা প্রশাসন। বাংলাদেশ থেকে সবুজ সংকেত মিললেই খুব শিঘ্রই ভারত – বাংলাদেশ বৈদেশিক বানিজ্য শুরু হয়ে যাবে। বুধবার বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয় মেখলিগঞ্জ সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিকরের অফিসে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন কোচবিহারের জেলা শাসক পবন কাদিয়ান, মেখলিগঞ্জ মহকুমা শাসক রাম কুমার তামাং, মেখলিগঞ্জ বিডিও সাংগে ইউডেন ভুটিয়া, মেখলিগঞ্জ বিধায়ক অর্ঘ্য রায় প্রধান,চ্যাংড়াবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান পরেশ চন্দ্র অধিকারী, মেখলিগঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি নিয়তি সরকার, চ্যাংড়াবান্ধা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান, ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন প্রতিনিধি, মেখলিগঞ্জ থানার ওসি রাজু সোনার, চ্যাংড়াবান্ধা বিএসএফ ক্যাম্পের আধিকারিকরা সহ বৈদেশিক বানিজ্যের সঙ্গে যুক্ত ব্যাক্তি ও অন্যান্য প্রশাসনিক কর্তারা।

 

 

বৈঠকে আলোচনা করা হয়েছে করোনা পরিস্থিতিতে সীমান্ত বৈদেশিক বাণিজ্য চালু করা যাবে কিনা, চালু হলে কি কি সমস্যা দেখা দিতে পারে আর সেগুলির সমাধানেই বা কি কি করা হবে। জেলা শাসক পবন কাদিয়ান জানিয়েছেন, খুব শিঘ্রই বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনায় বসে ভারত- বাংলাদেশ বৈদেশিক বাণিজ্য চালু করা হবে। তবে করোনা পরিস্থিতিতে বৈদেশিক বাণিজ্য চালু করা হলেও ট্রাক চালকদের মাস্ক, স্যানিটাইজার ও থার্মাল ক্যানিং এর ব্যাবস্থা থাকবে। ভারত-বাংলাদেশ বৈদেশিক বানিজ্যে ট্রাক চালকদের নিরাপত্তার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে জেলা শাসক পবন কাদিয়ান আরও জানিয়েছেন, যদিও বাংলাদেশের কিছু কিছু জায়গায় করোনার সংক্রমন দেখা দিয়েছে কিন্তু সেটা আমদানি- রপ্তানী স্থল থেকে দূরে রয়েছে। এছাড়া ট্রাক চালকরা বাংলাদেশে পণ্য নামিয়ে দিয়েই ভারতে ফিরবে। এতে পাঁচ – ঘন্টার মধ্যেই তারা ভারতে ফিরে আসবে। তবুও প্রশাসনের তরফে ট্রাক চালকদের নিরাপত্তার বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে। তবে প্রশাসনের বৈঠকে ভারত- বাংলাদেশ সীমান্ত বানিজ্য নিয়ে সবুজ সংকেত মিললেও অন্যদিকে এই সীমান্ত বানিজ্য নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চিয়তাও।

 

 

 

অনেক ট্রাক মালিক ও চালক এই পরিস্থিতিতে সীমান্ত বানিজ্যে অংশ নিতে রাজি হয়নি। তারা জানান, আমাদের কোচবিহারে এখন করোনার সংক্রমন বেড়েই চলেছে, অন্য দিকে বাংলাদেশেও করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। এই অবস্থায় সীমান্ত বৈদেশিক বানিজ্যে অংশ গ্রহন ঝুঁকি পূর্ন। তবে সীমান্ত বৈদেশিক বানিজ্যের সাথে যুক্ত অনেকেই সামিল হতে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। তারা জানান, এই দীর্ঘ লক ডাউনে কাজ হারিয়ে তাদের সংসারে দেখা দিয়েছে আর্থিক অনটন। এই অবস্থায় সীমান্ত বৈদেশিক বাণিজ্য খুললে তারা তাতে অংশ নেবেন।

Related Articles

Back to top button
Close