fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

তৃণমূলের ‘উন্নয়ন’-এর ঢেউ মায়াপুরে! মহাপ্রভুর গৃহমন্দির অল্প বৃষ্টিতেই জলমগ্ন, উদ্বিগ্ন সাংসদ জগন্নাথ সরকার

শ্যামল কান্তি বিশ্বাস, নবদ্বীপ : তৃণমূলের শাসনকালে রাজ্য তথা জেলায় নাকি উন্নয়ণের জোয়ার বইছে। উন্নয়ণ এতটাই হয়েছে যে আন্তর্জাতিক ধর্মীয় তীর্থভূমি,মায়াপুরের মহাপ্রভুর গৃহমন্দির এখন জলমগ্ন, অভিযোগ সাংসদ জগন্নাথ সরকারের।

তিনি আরো বলেন,অল্প বিস্তর বৃষ্টি হলেই,জল নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় আবাসিক পূণ্যারথী, পূজারী সহ তীর্থ যাত্রীদের। রাজ্যে উন্নয়ণ এতটাই হয়েছে যে, বৃষ্টি হলে বিভিন্ন সময়ে রাস্তা ঘাটে ধানের চাষ, মাছের চাষ পর্যন্ত করতে দেখা যায় বিক্ষোভ কারীদের।

প্রতিনিয়ত চলাচলের অযোগ্য, খানাখন্দ যুক্ত ভগ্নপ্রায় রাস্তায় পথ দূর্ঘটনার কবলে পড়ে মৃত্যু হচ্ছে কত নর-নারীর। এর পর ও এই ব্যার্থ সরকার হয়তো বলবে তারা নাকি রাজ্যে উন্নয়নের বন্যা বইয়ে দিয়েছে?বিরোধীদের রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনে বাধার পাশাপাশি রাজ্যের পুলিশ প্রশাসনকে দলদাসে পরিনত করেই ক্ষান্ত থাকেনি এই সরকার, আমফান ঝড়ে প্রকৃত ক্ষতিগ্ৰস্থদের আর্থিক অনুদান না দিয়ে দলের অভ্যন্তরে স্বজনপোষন সহ নানা তুষ্টিকরণের রাজনীতির পাকে পড়ে তৃণমূল কংগ্রেস এখন দুর্নীতির পাকে হাবুডুবু খাচ্ছে।

কোনও ভোট কুশলী কিংবা ডাক্তার, কবিবাজ, ওঝা, বৈদ্য এদের বাঁচাতে পারবে না বলে অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে অভিমত ব্যক্ত করেন জগন্নাথ বাবু। পরাজয় নিশ্চিত জেনে রাজ্য ব্যাপী চরম সন্ত্রাসে নেমেছে এখন তৃনমূল কংগ্রেস দলটি। গত ৮ই অক্টোবরের ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি, নবান্ন অভিযানের শান্তিপূর্ণ মিছিলে কর্মীদের উপর পুলিশী জুলুম সহ অত্যাচার সারা দেশ দেখেছে, কোন সভ্য শাসন ব্যবস্থায় এমনটি হয় না।

সাধারণ কর্মী সমর্থকদের তো মেরেছে-ই, বাদ যায় নি দলীয় নেতার দেহরক্ষী ও। বলবিন্দর সিং,একজন অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মী, যার আর্মস রাখার সরকারি অনুমোদন রয়েছে,তার উপর কিনা পাশবিক নির্যাতন সহ ন্যক্কারজনক আচরণ!সারা দেশের কাছে বাংলা সম্পর্কে কি বার্তা গেল!আর এ রাজ্যের পুলিশের ভূমিকা?শিখ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নিয়ম-আচার মেনে মাথার পাগড়ি,সেটা পর্যন্ত খুলে ধর্মীয় ভাবাবেগকে আঘাত করে, তাকে টেনে হিঁচড়ে বেদম প্রহার করে সমাজকে, কি বার্তা সেদিন দিতে চেয়েছে রাজ্যের পুলিশ?

এ লজ্জা শুধু শিখ সম্প্রদায়ের নয়, লজ্জা সমগ্ৰ দেশবাসীর। সীমাহীন অত্যাচারের অবসান ঘটবেই। দ্রুত রাজ্যবাসী এই দূর্নীতিগ্ৰস্থ তৃনমূল সরকারের অবসান ঘটিয়ে বাংলায় সু শাসন ফিরিয়ে আনবেই,এ দাবি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের।

Related Articles

Back to top button
Close