fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

“দম বন্ধ হয়ে আসছে, মন চাইছে মুক্ত আকাশে মুক্তি”, বিধায়ক শীলভদ্র দত্তের ফেসবুক পোস্ট ঘিরে বিতর্ক

অলোক কুমার ঘোষ, ব্যারাকপুর : করোনা আবহের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যারাকপুরের তৃণমূল কংগ্রেসের বিধায়ক শীলভদ্র দত্তের করা একটি ফেসবুক পোস্ট ঘিরে শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক।

ব্যারাকপুরের তৃণমূল বিধায়ক  শিলভদ্র দত্ত সম্প্রতি ফেসবুকে নিজের অ্যাকাউন্টে একটি পোস্ট করেন। সেই পোস্টে তিনি লেখেন, “দম বন্ধ হয়ে আসছে, মন চাইছে মুক্ত আকাশে মুক্তি।” ব্যারাকপুরের তৃণমূল বিধায়কের এই পোস্ট সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রকাশ পেতেই জল্পনা ও বিতর্ক শুরু হয়ে যায় রাজ্যের রাজনৈতিক মহলে ।

এই পোস্টের পর রাজনৈতিক মহলে জোর জল্পনা শুরু হয়, তাহলে কি এবার তৃণমূল বিধায়ক শিলভদ্র দত্ত তৃণমূল কংগ্রেস দল ছেড়ে বিজিপিতে যোগ দিতে চলেছেন ? এই পোস্টটির পর বিজিপির তরফ থেকে ব্যারাকপুরের বিজেপি নেতা অহিন্দ্রনাথ বসু জানান, “শুধু শিলভদ্র দত্তই নন সারা পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের এমন বহু নেতা নেত্রী আছেন যাদের দম বন্ধ অবস্থা হয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেস দলটি বর্তমানে দুই তিন জনের নেতৃত্বে চলছে, ফলে অনেকেই তৃণমূল দলে নিজেদের মত স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারছেন না। অনেকেই আছেন যারা অন্যায়ের সাথে আপোষ করতেও পারছেন না, আবার দল ছেড়ে বেরতেও পারছেন না । ফলে শীলভদ্র দত্তের মত অনেকেই তৃণমূল কংগ্রেস দলের মধ্যে দম বন্ধ অবস্থায় রয়েছে ।

ব্যারাকপুরের তৃণমূল বিধায়ক হওয়া সত্ত্বেও শিলভদ্র দত্তকে  তৃণমূলের কিছু লোক সেই ভাবে কাজ করতে দেয় নি। তাই হয়তো এত দিন ধরে ব্যারাকপুরের জন্য সেই ভাবে কিছু করতে না পারার যন্ত্রনা থেকেই শীলভদ্র দত্ত এমন পোস্ট করেছেন ।”

    ব্যারাকপুরের তৃণমূল বিধায়ক শীলভদ্র বাবু সোশ্যাল মিডিয়াতে তার নিজের করা পোস্ট ঘিরে বিজেপি যে বিতর্ক তৈরি করছে সে বিষয়ে সাংবাদিক বৈঠক করে মুখ খুললেন । শিলভদ্র দত্ত ব্যারাকপুরে ডাকা এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই বিষয়ে জানান, “সারা পৃথিবী তথা ভারত জুড়ে এই করোনা পরিস্থিতিতে যে সমস্ত মানুষ এমন কি আমিও যে ঘরবন্দী অবস্থায় আছি, সব সময় মাস্ক পরে থাকতে হচ্ছে । এই দম বন্ধ অবস্থা থেকেই আমি মুক্তি পাওয়ার কথা বলেছিলাম।আমার মনে হয় আমরা সবাই এই দম বন্ধ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে চাইছি ,আমরা সবাই চাই পৃথিবী থেকে করোনা দূর হোক । আমরা আবার আগের মত খোলা আকাশের নিচে আমরা সবাই নিশ্চিন্তে বাঁচতে চাই । আর সেটাই আমি সোশ্যাল মিডিয়াতে লিখেছিলাম।এটা নিয়ে যদি কেউ বিতর্ক তৈরি করে, সেটা নিয়ে আমার কিছু বলার নেই । আমি আমার কথা বলেছি তবে আমার পোস্টটি কোন দলগত পোস্ট নয় বা কোন রাজনৈতিক পোস্ট নয়। আমি আমার তৃণমূল কংগ্রেস দলে ভালো জায়গাতেই আছি। আর আমার লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট হয়েছে এটা সকলেই জানে, দলীয় নেতৃত্ব আমাকে বলে দিয়েছে, যেখানে ভিড় বেশি হবে সেখানে যেন আমি না যাই ।

সম্প্রতি করোনাতে পানিহাটি পুরসভার পৌরপ্রশাসক স্বপন ঘোষের মৃত্যু ভয়ের সৃষ্টি করেছে । উনার কিডনি ট্রান্স প্লান্ট হয়েছিল, আমার লিভার ট্রান্স প্লান্ট হয়েছে । তাই এই করোনাতে আমাদের মত মানুষদের খুবই সাবধানে থাকতে হবে, ভয়টা সেখানেই । সেই কারনে আমি ইদানিং বিভিন্ন দলীয় কর্মসূচীতে খুব বেশি অংশ নিচ্ছিলাম না। বিজেপির কে কি বলল, সেটা নিয়ে আমি কি বলব ? আমার কথা আমি বলেছি, বিজেপিতে যোগ দানের কোন সম্ভাবনা নেই, দলের বিরুদ্ধে এই পোস্ট নয়, দলের বিরুদ্ধে কিছু বলার হলে ফেসবুক বা সাংবাদিকদের সেটা বলব না, আমার নেত্রীকে বলব, এটা নিয়ে বিতর্কের কিছু নেই ।”

Related Articles

Back to top button
Close