fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভাঙড়ে আবার আক্রান্ত আব্বাস সিদ্দীকির অনুগামীরা, ভাঙড় থানায় বিক্ষোভ

ফিরোজ আহমেদ, ভাঙড়: ভাঙড়ে আবার আক্রান্ত আব্বাস সিদ্দীকির অনুগামীরা। তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ আব্বাস অনুগামীদের বাড়িতে হামলার। মঙ্গলবার সকালে ভাঙড়ের সিতুড়ি গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। প্রতিবাদ জানিয়ে আব্বাস অনুগামীরা ভাঙড় থানা ঘেরাও করেন এবং ডেপুটেশন দেন। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করলেও এখনও কাউকে গ্রেফতার বা আটক করতে পারেনি। মঙ্গলবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে ভাঙড়ের সিতুড়ি গ্রামে। পুলিশ জানিয়েছে অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, আগামী সপ্তাহে জীবনতলায় একটি বড় সভার ডাক দিয়েছে আব্বাস সিদ্দীকির আহলে সুন্নাতুল জামাত সংগঠন। সেইজন্য ভাঙড় ও ক্যানিং পূর্ব বিধানসভা এলাকার বিভিন্ন গ্রামে পতাকা, ফেস্টুন লাগাচ্ছেন সংগঠনের কর্মীরা। সোমবার সন্ধ্যায় ও মঙ্গলবার সকালে এই নিয়ে দু’দফায় তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে ওই এলাকায়। আহলে সুন্নাতুল জামাতের কর্মীদের বাড়িতে হামলা  এবং মারধর করার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

[আরও পড়ুন- আন্তর্জাতিক টেলি কলিং প্রতারণা চক্রের দুই পান্ডা গ্রেফতার]

যদিও তৃণমূল এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এদিন জামাতের কর্মী জাকির মোল্লা, এবাদত সাঁফুইয়ের বাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয় বলে অভিযোগ উঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় ভাঙড় থানার পুলিশ। তারা দু’পক্ষকে এলাকা থেকে হটিয়ে দেয়। ঘটনার পর আহলে সুন্নাতুল জামাতের কর্মী-সমর্থকরা ভাঙড় থানার সামনে এসে বিক্ষোভ দেখায়। পরে দোষীদের গ্রেফতারের দাবিতে তারা ভাঙড় থানায় অভিযোগ জানায়।

এই বিষয়ে আহলে সুন্নাতুল জামাতের পক্ষে আব্দুল মালেক বলেন, ‘আমাদের কর্মীরা এলাকায় দলীয় পতাকা লাগাতে গেলে তৃণমূলের লোকজন হামলা চালায়। এই ঘটনায় আমাদের কয়েকজন জখম হয়েছেন’। অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে ওই এলাকার তৃণমূল নেতা সাত্তার মোল্লা বলেন, ‘এই ঘটনার সঙ্গে আমাদের দল কোনওভাবেই জড়িত নয়। ওরা মিথ্যা অভিযোগ করছে। কোন বাড়িঘর ভাঙচুর, মারধর কিছুই হয়নি। পুলিশ নিরপেক্ষ তদন্ত করলে সবটাই পরিষ্কার হয়ে যাবে।’

 

Related Articles

Back to top button
Close