fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

খুনের ২২ দিন পরেও গ্রেফতার হয়নি অভিযুক্তরা, আসানসোলে কমিশনারের দ্বারস্থ মৃত ব্যবসায়ীর স্ত্রী

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: প্রকাশ্য দিবালোকে আসানসোল বাজারে ঘটা খুনের ঘটনার ২২ বাইশ দিন পরেও অভিযুক্তরা কেউ গ্রেফতার হয়নি। তাই এবার আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিতভাবে অভিযোগ জানান মৃত ব্যবসায়ীর স্ত্রী,শাশুড়ি সহ অন্যরা। তাদের অভিযোগ, নির্দিষ্টভাবে নাম দিয়ে আসানসোল দক্ষিণ থানায় ৫ জনের বিরূদ্ধে অভিযোগ করার পরেও এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি। এমনকি বারবার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট চেয়েও তারা তা পাচ্ছেন না।

উল্লেখ্য, আসানসোলের রেলপার এলাকার বাসিন্দা মহঃ ইশরার নামে এক কাপড় ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্য বাজারে মারধর করে খুন করার অভিযোগ উঠেছিলো তারই সম্পর্কিত ৫ খুড়তুতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে। প্রকাশ্য দিবালোকে আসানসোল বাজারে ঘটা এই ঘটনার ২২ বাইশ দিন পরেও অভিযুক্তরা কেউ গ্রেফতার হয়নি। আর তাই মঙ্গলবার সকালে আসানসোলে আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশ কমিশনারের কাছে মৃত ব্যবসায়ীর স্ত্রী, শাশুড়ি সহ অন্যরা লিখিতভাবে অভিযোগ জানান।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আসানসোল বাজারে দোকানের সামনে নোংরা আবর্জনা ফেলা নিয়ে বিবাদের জেরে গত ৪ অক্টোবর ওই ব্যবসায়ীকে মারধর করার অভিযোগ উঠে তার খুড়তুতো ৫ ভাইয়ের বিরুদ্ধে। পরে ওই ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়। পরিবারের সদস্যরা ব্যবসায়ীর দেহ কবরও দিয়ে দেন৷ শেষ পর্যন্ত সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে গত ৮ অক্টোবর উত্তর আসানসোলের রেলপার এলাকায় কবরস্থান থেকে তার দেহ তুলে ময়নাতদন্ত করা হয় আসানসোল জেলা হাসপাতালে। মৃত ব্যবসায়ীর বাড়ি আসানসোল উত্তর থানার রেলপারের ওকে রোডে। তার স্ত্রী ছাড়াও দেড় বছরের এক সন্তান আছে।

পরিবারের তরফে জানানো হয়, যদি এখানে তারা এসে অভিযোগ জানানোর পরে সুবিচার না পান তাহলে তারা একেবারে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হবেন সুবিচারের আশায়। মৃতার শাশুড়ি রাফাত পারভিন বলেন, আমাদের বিশ্বাস আসানসোল দূর্গাপুরের পুলিশ কমিশনার আমার মেয়েকে তার বোনের মতো ভেবে নিশ্চয়ই প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতার করানোর ব্যবস্থা করবেন। পাশাপাশি তিনি আদালতের সাহায্যে তাদের ফাঁসির দেওয়ানোরও ব্যবস্থা করবেন।

মহঃ ইশরারের শ্বশুর মুস্তাফিজ আলম বলেন, মহঃ জালোর পাঁচ ছেলের নামে জামাইকে খুনের অভিযোগ থাকলেও পুলিশ এখনো কাউকে গ্রেফতার করেনি। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আমরা পাইনি। আমরা গোটা বিষয়টি এদিন আসানসোল দূর্গাপুরের পুলিশ কমিশনারের অফিসে এসে জানালাম। পুলিশ কমিশনারের কাছ থেকে সহযোগিতার আশ্বাস মিলেছে।

Related Articles

Back to top button
Close