fbpx
কলকাতাহেডলাইন

সেলিম ভাইয়ের টুইট আমায় উত্‍সাহিত করল, একসঙ্গে লড়ব: অধীর চৌধুরী

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ২১শের ভোটের আগের বাংলার দায়ভার দিয়েছে কংগ্রেস। শেষে পুরনো সৈনিকেই আস্থা রেখেছে সনিয়া। অধীর চৌধুরীর নাম কংগ্রেস হাইকমান্ড প্রদেশ সভাপতি হিসেবে ঘোষণা করার পরই খুশির জোয়ার বয়ে যায় আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে। সিপিএম পলিটব্যুরোর সদস্য মহম্মদ সেলিম শুক্রবার একটি টুইট বার্তায় নবনিযুক্ত প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বিজেপি ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে বাম-কংগ্রেসের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন কর্মসূচি এবার আরও শক্তিশালী হবে। সেলিমের টুইটের জবাবে লোকসভায় কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী বলেন, ‘সেলিম ভাইয়ের টুইট আমায় উত্‍সাহিত করল, একসঙ্গে লড়ব।’

প্রদেশ সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর বাম নেতা মহম্মদ সেলিম টুইট করে তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। সেই টুইটের প্রেক্ষিতে অধীর টুইট করে জানিয়েছেন, ‘সেলিম ভাইয়ের টুইট আমায় উৎসাহিত করল, আমরা একসাথে লড়ব।’ এর থেকেই স্পষ্ট যে জোটবার্তা দিলেন অধীর। কারণ, এই অসম লড়াইয়ে তিনি জোট টিকিয়ে রাখতে চান। যে পরিস্থিতিতে অধীর প্রদেশ সভাপতির দায়িত্ব নিলেন, তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

অনেকের মতে, সোমেন মিত্রর মৃত্যুর পর সভাপতি হওয়ার জন্য দিল্লির দরবারে দৌত্য শুরু করেছিলেন তৃণমূলের সমর্থনে রাজ্যসভার কংগ্রেস সাংসদ তথা বর্ষীয়ান নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য। তার ফলে অনেকের মধ্যেই আশঙ্কার মেঘ জমেছিল, একুশের ভোটে না ফের তৃণমূল-কংগ্রেস জোট হয় বাংলায়! তাতে আরও অক্সিজেন জোগায় জয়েন্ট ও নিট পরীক্ষা নিয়ে সনিয়া গান্ধীর ডাকা বৈঠক। অবিজেপি মুখ্যমন্ত্রীদের সেই বৈঠকে কেরলের বাম সরকারের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নকে না ডাকা এবং সেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মধ্যমণি হয়ে ওঠা দেখে অনেকেই ধারণা করে নেন, একুশে বোধহয় ফের কংগ্রেস-তৃণমূল জোট হতে চলেছে বাংলায়। চাপে পড়ে যায় বামেরাও। কিন্ত অধীরবাবুকে প্রদেশ সভাপতি করে তৃণমূলের সঙ্গে জোটের সম্ভাবনায় কার্যত জল ঢেলে দিয়েছে ১০ জনপথ। কারণ, সনিয়ারা জানেন অধীর চৌধুরীর মমতা বিরোধিতা কতটা কট্টর। সেসব জেনেও তাঁকে বাংলার সভাপতি করেছে কংগ্রেসে।

আরও পড়ুন: অরুণাচলের নিখোঁজ ৫ গ্রামবাসীকে অবশেষে ভারতে ফেরাল চিন

তৃণমূল নেতারা অবশ্যএ ব্যাপারে বলছেন, তেলে আর জলে কখনও মিল খায় না। যে সিপিএমের হাতে ৩৪ বছর ধরে হাজার হাজার কংগ্রেস কর্মী খুন হয়েছে, তাদের কাছে বিকিয়ে যাওয়া নিচুস্তরের কর্মীরা মেনে নেবে না। ১৬-তেও ওদের জোট সফল হয়নি। একুশেও হবে না।

Related Articles

Back to top button
Close