fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ফের একবার বাংলার কাণ্ডারী উঠতে চলেছে অধীরের কাঁধে?

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: ফের একবার বাংলা কংগ্রেসের মুখ হতে চলেছেন জাতীয় কংগ্রেসের অন্যতম সারথি তথা সংসদীয় নেতা অধীর চৌধুরি। এমনটাই সূত্রের খবর। যদিও এই বিষয়ে আগেই সোনিয়া গান্ধীকে চিঠি লিখে নিজের মতামত জানিয়েছেন কংগ্রেসের পরিষদীয় নেতা আব্দুল মান্নান। চিঠিতে তিনি পরিস্কার ভাবে অধীর চৌধুরির জন্য সুপারিশ করেন। কংগ্রেস হাইকমান্ড অবশ্য এ বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত জানায় নি। কারণ একদিকে সদ্য প্রয়াত হয়েছেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা কংগ্রেসের অন্যতম কাণ্ডারি প্রণব মুখোপাধ্যায়।

অন্যদিকে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দিল্লিতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন অধীর। সেক্ষেত্রে দুই সামলানো কিছুটা অসম্ভব হয়ে পরবে সংসদীয় নেতার জন্য। অধির চৌধুরি ও অবশ্য এ বিষয়ে নিজের কোন ও মতামত প্রকাশ করে নি। এদিকে সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য প্রদেশ সভাপতির অন্যতম দাবিদার। কিন্তু বার্ধক্য জনিত কারনে কিছুটা হলেও  অধিরের থেকে পিছিয়ে তিনি। সে ক্ষেত্রে মুকুট কার মাথায় এখনই বলা সম্ভব নয়। তবে কিছুটা হলেও অন্যান্য দের থেকে এগিয়ে অধির। কিন্তু এত বড় সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অধিরের মতামত অবশ্যই নেবে হাইকমান্ড।

গত ৩০ জুলাই সোমেন মিত্রের মৃত্যুর পর থেকে রাজ্যে শূন্য হয়ে পড়ে রয়েছে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির পদ। ইতিমধ্যে অনেকেই সেই পদের দাবিদার হতে চাইলেও লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা ‌অধীর চৌধুরীকেই পরবর্তী প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি হিসেবে দেখতে চান আবদুল মান্নান। ‌অধীর চৌধুরীকে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি করার অনুরোধ জানিয়ে এবার সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীকে চিঠি লিখলেন তিনি।
চিঠিতে তিনি পশ্চিমবঙ্গে দলের সাংগঠনিক সমস্যার দিকে নজর দিতে অনুরোধ জানিয়েছেন সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধীকে। পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান ওই চিঠিতে লিখেছেন, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রের মৃত্যুর এক মাস হয়ে গিয়েছে, এখনও শূন্য সেই পদে কাউকে নিয়োগ করা হয়নি। ২০২১–এর শুরুতেই বিধানসভা নির্বাচন। এ অবস্থায় দ্রুত প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি নিয়োগ করা প্রয়োজন। আবদুল মান্নান চিঠিতে অনুরোধ জানিয়েছেন, এমন কাউকে এই পদে নিয়োজিত করা হোক যাঁর জনপ্রিয়তা রয়েছে।

এর পরই তিনি সাংসদ অধীররঞ্জন চৌধুরীকে ফের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি করার আবেদন জানান সোনিয়া গান্ধীর কাছে। তিনি বলেন, প্রধান বিরোধী দল বিজেপি এবং তৃণমূলকে নির্বাচনে টেক্কা দিতে অধীর চৌধুরীর নেতৃত্বই সব থেকে বেশি ফলপ্রসূ হবে। এ ক্ষেত্রে তিনি একইসঙ্গে লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতার দায়িত্বও পালন করতে পারবেন। একইসঙ্গে চিঠিতে আবদুল মান্নান জানান যে সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধীর সিদ্ধান্ত যাই হোক না কেন তিনি সেটিই শিরোধার্য করে নেবেন।

Related Articles

Back to top button
Close