fbpx
কলকাতাহেডলাইন

অমিত সাফল্যের পর গেরুয়া শিবিরের চমক যোগি আদিত্যনাথ, স্মৃতি, রাজনাথ!

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: একুশের মহারণের লক্ষ্যে জোরকদমে ময়দানে গেরুয়া শিবির। উনিশে রাজ্যে বাজিমাত করার দুই প্রধান সেনাপতি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ এবারও সামনে থেকেই নেতৃত্ব দিচ্ছেন। গত ৯ তারিখ রাজ্যের প্রথম ভার্চুয়াল জনসভায় বাজিমাত করেছেন অমিত শাহ। তার একদিনের তফাতেই শহরের অন্যতম প্রাচীন বণিকসভা আইসিসির প্লেনামে ভার্চুয়াল মাধ্যমে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলায় বললেন, ‘ আশা করি সবাই ভালো আছেন।’ কখনও রবীন্দ্রনাথ, কখনও স্বামী বিবেকানন্দকে স্মরণ করে বাংলার হৃত গৌরব ফিরিয়ে আনার বিষয়ে আশা প্রকাশ করলেন।

এর ফলে কিছুটা হলেও চাপে পড়ে গিয়েছে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। আর এই হাওয়াটা ধরে রাখতে মরিয়া রাজ্য বিজেপি বাকি চারটি ভার্চুয়াল জনসভায় হাজির করতে চাইছে স্মৃতি ইরানি, রাজনাথ সিং, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগি আদিত্যনাথের মতো তারকাদের। প্রসঙ্গত একুশের মহাযুদ্ধের জন্য সময় খুব বেশি নেই। অথচ করোনা আর লকডাউনের জেরে জনসভা বা সমাবেশ করার সুযোগ নেই। সুতরাং কৌশল বদলে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের ব্যবহার করে পাঁচটি ভার্চুয়াল জনসভার পরিকল্পনা করে গেরুয়া শিবির। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রথম সভাতেই সাফল্য পেয়ে উজ্জীবিত তারা। রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, ‘অমিতজির ভার্চুয়াল সভার পর বেসামাল হয়ে গিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তাই প্রত্যেক দিন দিদিমনি, দলের ছোট-বড় নেতা অমিতজিকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করছেন। আর এতে বিজেপিরই সুবিধা হচ্ছে। মানুষ তৃণমূলের থেকে দূরে সরে যাচ্ছে।’

আরও পড়ুন: সরকারি-বেসরকারি কর্মীদের জন্য বিশেষ অনুরোধ মুখ্যমন্ত্রীর

রাজ্য বিজেপির পক্ষে এই পাঁচটি ভার্চুয়াল জনসভা আয়োজনের দায়িত্বে রয়েছেন দুই সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় সিং ও লকেট চট্টোপাধ্যায়। সঞ্জয় সিং জানালেন, ‘ আমরা বাকি চারটি ভার্চুয়াল জনসভার জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে ১০ জন নেতা নেত্রীর নাম পাঠিয়েছি। এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন স্মৃতি ইরানি, রাজনাথ সিং, নির্মলা সীতারামন, ধর্মেন্দ্র প্রধান, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগি আদিত্যনাথ, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব, অনুরাগ ঠাকুর, সম্বিত পাত্র প্রমুখ। আমরা দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডাজিকেও চেয়েছিলাম। সম্ভবত নাড্ডাজি সময় দিতে পারবেন না। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বই নাম চূড়ান্ত করবেন। দিনক্ষণ ওঁরাই ঠিক করবেন।’  সূত্রের খবর এই মাসের শেষের দিকে একটি ভার্চুয়াল সভা হতে পারে। বাকি দুটি জুলাই ও একটি আগস্টে হতে পারে। তবে সব কিছুই চূড়ান্ত করবে দিল্লির সিদ্ধান্তের উপর।

Related Articles

Back to top button
Close