fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

প্রস্তুত হচ্ছে ভারত! ‘সমুদ্র কূটনীতির’ পর লাদাখে বসছে একাধিক ফরওয়ার্ড এয়ারবেস

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: লাদাখে ভারত-চিন সমস্যা বিদ্যমান। এবার সেখানেই যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে যুদ্ধ বিমান অবতরণের জন্য বিশেষ বায়ুসেনা ঘাঁটি তৈরি করছে ভারত। দক্ষিণ কাশ্মীরে ভারতের জাতীয় হাইওয়ে কর্তৃপক্ষ NHAI শ্রীনগর-জম্মু জাতীয় সড়কে জরুরি অবতরণ স্ট্রিপ তৈরি করছে।

দক্ষিণ কাশ্মীরের বিজবেহার নিকটে শ্রীনগর ও জম্মুর মধ্যে নতুন নির্মিত জাতীয় হাইওয়ের পাশেই কাজ শুরু হয়েছে। এই রাস্তা আকাশ পথের আয়তনের মোট ৩.৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট হবে এবং সেনাদের জরুরী অবতরণের জন্য ব্যবহৃত হবে। কর্মকর্তারা অবশ্য দক্ষিণ কাশ্মীরে বিমান চলাচল নির্মাণের সাথে ভারত-চিন সীমান্ত উত্তেজনার যোগসূত্রকে অস্বীকার করেছেন। গত ৫ মে থেকে ভারত চিন সেনার মধ্যে তৈরি হয়েছে উত্তেজনা, যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

গত প্রায় ২৫ দিন ধরে চিনের সন্যের সঙ্গে ভারতীয় সেনার ঠাণ্ডা লড়াই চলছে। ভারত-চিন দুই দেশের সম্পর্ক এখন বেশ জটিল। সীমান্তে পরিস্থিতি সামাল দিতে ভারত ও চিন সামরিক স্তরের আলোচনা করবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পূর্ব লাদাখের পানগং, তসো, গালওয়ান ভ্যালি, ডেমচক এবং দৌলতবাগের ওল্ডিতে তিন সপ্তাহ ধরে ভারত ও চিনের সেনাবাহিনী বেশ গুরুতর সমস্যার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে। সেই সঙ্গে সৃষ্টি হয়েছে সীমান্তে অচল অবস্থা।

যদিও সম্প্রতি আকসাই চীন গালওবান ভ্যালিতে ভারী মাত্রা আর্টিলারি রেজিমেন্ট মোতায়েন করেছে ভারত। ‌ সূত্রের খবর ভারতীয় সেনার আগ্রাসী মনোভাব বুঝতে পেরে গালওয়ান ভ্যালি থেকে কমপক্ষে ২ থেকে ৫ কিলোমিটার পিছিয়ে এসেছে চিনা সেনারা। সূত্রের খবর ভারতীয় সেনার আগ্রাসী মনোভাব বুঝতে পেরে গাল ওয়ান ভ্যালি থেকে কমপক্ষে ২ থেকে ৫ কিলোমিটার পিছিয়ে এসেছে চিনা সেনারা।

অন্যদিকে ভারত মহাসাগরে এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে অস্ট্রেলিয়া এবং জাপানের সঙ্গে সম্প্রতি নৌ সামরিক চুক্তি সম্পাদন করেছে ভারত। ফলে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকায় এখন থেকে অস্ট্রেলিয়া ও জাপানের নৌসেনা ঘাটিগুলি ব্যবহার করতে পারবে ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ গুলি। মেরামত, বিশ্রাম, জ্বালানি ভরার ক্ষেত্রেও ওই বিদেশি নৌঘাঁটিতে মোতায়েন করা যাবে ভারতীয় নৌবহর। নয়া দিল্লির এই পদক্ষেপে স্বাভাবিক ভাবেই চিন্তা বাড়াবে বেজিংয়ের। এছাড়াও, ভিয়েতনামকে ব্রহ্মোস মিসাইল রপ্তানির ক্ষেত্রে চীন বহুবার বাধা সৃষ্টি করলেও তাতে কান দেয়নি ভারত। এবার সে পথে হেঁটেই দক্ষিণ চিন সাগরে চীনকে রুখতে ভিয়েতনামকে আকাশ ক্ষেপণাস্ত্র রপ্তানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে নয়াদিল্লি।

Related Articles

Back to top button
Close