fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

চিত্তরঞ্জনে তিনদিন ধরে নিখোঁজ থাকা যুবকের ক্ষত বিক্ষত দেহ উদ্ধারে চাঞ্চল্য, খুনের অভিযোগ দিদির

শুভেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়, আসানসোল: রেল শহর চিত্তরঞ্জনে তিনদিন ধরে   নিখোঁজ থাকা এক যুবকের ক্ষত বিক্ষত দেহ উদ্ধার হয়। রহস্যজনক এই মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার সকালে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়। মৃত যুবকের নাম  রাকেশ প্রসাদ ওরফে ছোটু (২৪)।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তিন দিন আগে অর্থাৎ  গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে নিখোঁজ ছিলো চিত্তরঞ্জনের ফতেপুর এলাকার ৪৪ নং স্ট্রিটের ৪/এ কোয়ার্টারের বাসিন্দা রেল কর্মীর ছেলে  রাকেশ প্রসাদ ওরফে ছোটু । সব জায়গায়  খোঁজাখুঁজি করেও তার সন্ধান না পেয়ে বাড়ির লোকেরা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চিত্তরঞ্জন থানায় একটি মিসিং ডায়েরি করেন। এরপর শুক্রবার  সকালে রেল শহরের টিপিটি সেগুন বাগান এলাকায় ঝোপের মধ্যে ঐ যুবকের ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার হয়। রাকেশকে খুন করা হয়েছে বলে এদিন অভিযোগ করেছেন দিদি অঞ্জনা কুমারী।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, মাস চারেক আগে এলাকার  কিছু যুবকের সঙ্গে রাকেশের ঝগড়া হয়েছিল । সেই সময় আলোচনা করে সেই ঝামেলা মিটমাট করে নেওয়া হয়েছিলো। কিন্তু কয়েকদিন আগে ভাইকে কিছু যুবক আবার মারধর করে। তারা হুমকিও দেয়। গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে ভাই আচমকাই নিখোঁজ হয়ে যায়। যারা ভাই রাকেশকে  হুমকি দিয়েছিল সেই যুবকদের তিনি চেনেন না বলে এদিন দাবি করেছেন।  এদিন সকালে  ঐ সেগুনবাগানে কাঠ কাটতে গিয়ে এলাকার মানুষেরা দেহটি পড়ে দেখেন। দেহে ঘাড়ের উপর থেকে মাথার পেছনের দিকের অংশ প্রায় নেই বললেই চলে। থেঁতলানো দেহে কাটা দাগ দেখা গেছে বলে তারা জানিয়েছেন। খবর পেয়ে  চিত্তরঞ্জন থানার  পুলিশ এলাকায় আসে। পরে পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য আসানসোল জেলা হাসপাতালে পাঠায়।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে,  রাকেশ ওরফে ছোটু প্রসাদের এলাকায় খুব একটা সুনাম নেই । বিভিন্ন সময়ে তার বিরুদ্ধে নানা অসামাজিক কাজের অভিযোগও উঠেছিল। জানা যায়,   ২০১৮ সালে দুর্গা পুজোর অষ্টমীর দিন সালানপুরের দেন্দুয়ার কিছু যুবক ফতেপুর  পুজো দেখতে আসে। তাদের মোবাইল ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠে এই ছোটুুর বিরুদ্ধে ৷ তল্লাশিতে তার গোপন আস্তানা থেকে ছিনতাই হওয়া মোবাইলগুলি উদ্ধার করা হয়েছিল । এছাড়াও এক বাসন বিক্রেতার বাসনও চুরি করার অভিযোগ উঠেছিলো এই রাকেশের বিরুদ্ধে । সেগুলিও পরে মাটির তলা থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল। এছাড়াও মাদকচক্র ও সাইবার অপরাধের সঙ্গেও তার যোগ ছিল বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। চিত্তরঞ্জন পুলিশ এই ঘটনার কারন  খতিয়ে দেখছে। পুলিশ জানায়, প্রাথমিক ভাবে মনে হচ্ছে, ঐ যুবককে খুন  করা হয়েছে । আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশের ডিসিপি  (পশ্চিম) অনমিত্র দাস বলেন, ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এলে জানা যাবে যে, ঠিক কি ভাবে ঐ যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close