fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর দিঘা মোহনায় রুপোলী শস্য ইলিশ…দাম আকাশছোঁয়া

মিলন পণ্ডা, (পূর্ব মেদিনীপুর): দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে দিঘা মোহনায় দেখা মিলল রুপোলী শস্য ইলিশ। ইলিশের দেখা মিললেও তা মধ্যবিত্তদের নাগালের বাইরে। বিশ্বের বৃহত্তম নিলাম কেন্দ্র দিঘা মোহনায় বুধবার সকালে প্রায় দেড়শো টন ইলিশ বিক্রি হয়। প্রয়োজনের তুলনায় বেশি না হলেও আকারে ওজনে যথেষ্ঠ আশানুরূপ বলে জানিয়েছে মৎস্যজীবী। এদিন ইলিশ কিনতে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। বাঙালির প্রিয় ইলিশ মাছ এখন পাতে পড়া নিয়ে থেকেই যাচ্ছে অনিশ্চয়তা।

বুধবার সকালে দিঘা মোহনার মৎস্য নিলাম কেন্দ্রে দশটি ট্রলার এসে ঠেকে। যেগুলি থেকে প্রায় ৭০০ কেজি ওজনের ইলিশ পাওয়া যায়। চলতি মরসুমে ইলিশের খরার মাঝে এদিন সকালে হঠাৎ ইলিশের দেখা দিলে কিছুটা হলেও আশ্বাস জাগে মৎস্যজীবীদের। ইলিশের দাম ছিল একেবারে আকাশছোঁয়া। ৫০০- ৭০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের দাম ছিল এদিন ৬০০- ৮০০ টাকা, ১কেজি ওজনের ইলিশের দাম ছিল ১০০০- ১২০০ টাকা, দেড় কেজি ওজনের ইলিশের দাম একেবারে দুই হাজার টাকা। স্বাভাবিকভাবে বলা চলে এভাবে আকাশছোঁয়া মূল্যের ইলিশ এখন ইলিশ প্রিয় বাঙালির পাতে জুটবে কিনা সে নিয়ে প্রশ্ন জাগতে শুরু করেছে।

আরও পড়ুন: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম! ভারতীয় বংশোদ্ভূত মহিলা কমলা আমেরিকায় ভাইস-প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী

চলতি বছরে যখন লকডাউন ও ব‍্যান পিরিওডের দীর্ঘদিন পার করে মৎস্যজীবীরা সমুদ্রে পাড়ি দিয়েছিলেন তখন তারা আশায় ছিলেন এবছর সারে সারে উঠবে ইলিশ। চলতি মরসুমের প্রথম থেকেই দিঘায় ইলিশের খরা দেখা দিতে শুরু করে। অন্যান্য বছর এমন সময় ১০০০ – ১২০০ টন ইলিশ রফতানি হতো দিঘা থেকে। কিন্তু সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে চলতি বছর একেবারে ইলিশের খরা। তার মধ্যে হালকা বৃষ্টির পর বুধবার সকালে ইলিশের দেখা মেলায় কিছুটা আশায় বুক বাঁধছেন মৎস্যজীবীরা।

দিঘা মোহনা ফিশারম‍্যান অ্যান্ড ফিশ ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশনের কর্মকর্তা নবকুমার পয়ড়‍্যা বলেন, লকডাউন ও ব‍্যান পিরিয়ডের পর যখন আমরা ফিশিং শুরু করেছিলাম তখন আমরা ভেবেছিলাম এবছর মানুষের পাতে কম টাকায় ইলিশ তুলে দিতে পারব। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ইলিশের দেখা প্রায় নেই বললেই চলে দিঘাতে। কিন্তু তাও তার দাম একেবারে আকাশছোঁয়া।

Related Articles

Back to top button
Close