fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

আমফানের পর’নিসর্গ’, জারি হল লাল সতর্কতা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: আমফানের ক্ষত সারিয়ে উঠতে না উঠতেই ফের ঘূর্ণিঝড় ‘নিসর্গ’ র জেরে জারি হল লাল সতর্কতা। আমফানে বিধ্বস্ত হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশা। আর এর মধ্যেই
আরব সাগরে নতুন করে দানা বাঁধছে একটি ঘূর্ণিঝড়। বাংলাদেশের দেওয়া নাম অনুয়ায়ী সেটিই ‘নিসর্গ’।

আবহওয়া দফতর জানিয়েছে, গভীর নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিয়ে বুধবার স্থলভাগে আছড়ে পড়বে ‘নিসর্গ’। যার প্রভাবে বৃহস্পতিবারেও প্রবল বেগে ঝোড়ো হাওয়া ও ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

বুধবার সন্ধ্যায় সমুদ্র উপকূলে নিসর্গ যখন আসবে, তখন ঝড়ের গতিবেগ থাকবে সর্বোচ্চ ১১৫ থেকে ১২৫ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায়। যার দরুন প্রবল বৃষ্টিপাত হবে গোয়া, মহারাষ্ট্র, গুজরাট ও কেরলে।

ইতিমধ্যে কেরল, কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র ও গুজরাট উপকূলের মৎস্যজীবিদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। বিশেষত মহারাষ্ট্র ও গুজরাট উপকূলে জারি হয়েছে রেড অ্যালার্ট।

মুম্বই থেকে ৬৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে ও সুরাট থেকে  ৯২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে গভীর নিম্নচাপ হিসেবে অবস্থান করছে নিসর্গ। ধীরে ধীরে শক্তি বৃদ্ধি করে সাইক্লোনের রূপ নেবে এই নিম্নচাপ।

শুরুতে আরব সাগরের বুক চিরে উত্তর দিকে বয়ে যাবে নিসর্গ। তারপর উত্তর মহারাষ্ট্র ও দক্ষিণ গুজরাটের সমুদ্র উপকূলের মাঝখানে হরিহরেশ্বরে আছড়ে পড়বে এই ঘূর্ণিঝড়। এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে গোয়া ও কেরল, দমন ও লাক্ষাদ্বীপও।

তবে আরব সাগরে তৈরি হওয়া ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ বাংলায় সেইভাবে প্রভাব ফেলবেনা। তবে হালকা ও মাঝারী বৃষ্টিপাতের আশঙ্কা থাকছে বাংলায়।

প্রসঙ্গত, আমফান বঙ্গোপোসাগর থেকে জন্ম নিয়ে ১৬০ থেকে ১৮৫ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায় গতিবেগ নিয়ে দক্ষিণবঙ্গকে পুরো উড়িয়ে নিয়ে গিয়েছে। কিন্তু নিসর্গের সর্বোচ্চ গতিবেগ থাকবে ১২৫ কিলোমিটার। আমফানের মতো না হলেও যথেষ্ট শক্তিশালী রূপেই ভারতের জন্য অপেক্ষা করে আছে ফের এই ঘূর্ণিঝড়।

Related Articles

Back to top button
Close