fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

চারদিন নিখোঁজ থাকার পর যুবকের পচাগলা মৃতদেহ উদ্ধার

মিলন পণ্ডা, (পূর্ব মেদিনীপুর): চার দিন নিখোঁজ থাকার পরে কাঁথির যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার হল। সোমবার সকালে জুনপুট কোস্টাল থানার জানুবসানে মৃত যুবকের পচাগলা দেহ উদ্ধার হয়। বৃহস্পতিবার নিম্নচাপের ফলে সকাল থেকে মুষল ধারায় বৃষ্টি হচ্ছিল জেলার অন্যান্য প্রান্তের সঙ্গে কাঁথিতেও। এরই মাঝে ঘটে যায় এক বিপত্তি। যুবকের বাড়ি কাঁথি পৌরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের হাতাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা। পুলিশ জানিয়েছে মৃত কপিলদেব পন্ডা (৩০)।

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার ভরদুপুরে পরনে একখানি গামছা পরেই বৃষ্টি উপভোগ করতে বেরিয়ে পড়ে কাঁথি শহরের। বৃষ্টিতে ভেজার পাশাপাশি দুই ভাই মিলে রাজাবাজার এলাকায় ওড়িশা কোস্ট ক্যানেলের পাশে বসে আকন্ঠ মদ্যপান করে। মদের আসর থেকে ছোট ভাই জয়দেব বাড়ি ফিরলেও বড়ো ভাই কপিল  বাড়ি ফেরেনি। কাঁথির রাজাবাজার এলাকার ঢালাই ব্রিজের কাছে দুই ভাই বসে মদ্যপান করছিল বলে স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি। মদ্যপ ছোট ভাই বাড়ি ফিরলে তার দাদা কোথায় জিজ্ঞাসা করে পরিবারের লোকেরা সে উত্তর দিতে পারেনি।এর পরেই কপিল পন্ডার খোঁজ শুরু করে পরিবারের লোকেরা।

এলাকার এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, খালের পাশ দিয়ে নেশাগ্রস্থ অবস্থায় এক যুবক হেঁটে যাওয়ার সময় নিয়ন্ত্রন হারিয়ে জলে পড়ে যায়। সেই ছেলে কপিল কিনা বলতে পারবো না। তবে দেখলাম মাথা ও হাত ডুবন্ত ব্যবস্থা কিছু বোঝার আগেই  অদৃশ্য হয়ে গেল।পরে তিনি বাকি স্থানীয়দের ও কাঁথি থানার পুলিশকে খবর দেন। আসে দমকল বাহিনী। দুর্ঘটনাগ্রস্থ এলাকায় জলে খোঁজ করে যুবকের সন্ধান পায়নি। পরের দিন সকাল থেকে ডুবুরি নামিয়ে তল্লাশি অভিযান শুরু হয় গোটা খালে। কিন্তু খোঁজ পাওয়া যায়নি যুবকের। এরপর শনিবার ও রবিবার অভিযান চালিয়েও কোনও সন্ধান পাওয়া যায়নি ওই নিখোঁজ যুবকের। সোমবার সকালে জুনপুট উপকুল থানার জানুবাসান গ্রামের কাঠের ব্রীজের নীচে থেকে একটি মৃতদেহ ভাসতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পুলিশ গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে নিয়ে আসে। পরে মৃতদেহটি পরিবারের লোকেরা শনাক্ত করেন।

কাঁথি থানার এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, মৃতদেহটি পরিবারের লোকেরা শনাক্ত করেন। তারপরে মৃতদেহটি ময়না তদন্তে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে।দুর্ঘটনা নাকি এর পেছনে অন্য কোনও রহস্য জড়িয়ে রয়েছে সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close