বিজ্ঞান-প্রযুক্তি

চন্দ্রযান-২ এর পর চাঁদে পাড়ি দিতে চলেছে চন্দ্রযান-৩

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: চন্দ্রযান-২ এর পর চাঁদে পাড়ি দিতে চলেছে চন্দ্রযান-৩। যার নাম রাখা হয়েছে গগনযান মিশন। এর জন্য ইতিমধ্যেই চারজন মহাকাশচারীর নাম নির্বাচন করা হয়েছে। ২০২২ সালের মধ্যে এটি চাঁদে পাড়ি দেবে। সাতদিন ধরে এই মহাকাশ যানে চেপে মহাকাশচারীরা বিভিন্ন তথ্যের সন্ধান করবেন। এমনটাই জানানো হয়েছে ইসরো সূত্রে।
ব্যাঙ্গালুরুতে সাংবাদিকদের সামনে ইসরো প্রধান কে সিভান বলেন, গগনযানকে মহাকাশে পাঠানোর জন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজ চলছে। সেইসঙ্গে এই যানে চেপে যারা চাঁদে পাড়ি দেবেন তাদের প্রশিক্ষণও এই মিশনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেবে। চন্দ্রযান-৩ গন্তব্যের উদ্দেশে পাড়ি দেওয়ার জন্য ইতিমধ্যেই অনুমোদন পেয়েছে।

{আরও পড়ুন: নতুন বছরে অশান্ত উপত্যকা, পাক সেনাদের গুলিতে শহিদ ২ ভারতীয় জওয়ান}

সেইসঙ্গে সিভান জানান, চন্দ্রযান-২ এর পরে চন্দ্রযান-৩ মহাকাশে পাড়ি ইসরোর কাছে একটি অন্যতম চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জকে সফল করে তুলতে চন্দ্রযান-৩ এর জন্য কাজ শুরু হয়েছে। চন্দ্রযান-২ এর সময় বিক্রম ল্যান্ডার সেপ্টেম্বরে চাঁদে নরম জমিতে ব্যর্থ হন। নাসা সম্প্রতি একটি চেন্নাইয়ের টেকির সহায়তায় ক্র্যাশ সাইটে ধ্বংসস্তূপের ছবি প্রকাশ করেছে।

{আরও পড়ুন: সেনাবাহিনী রাজনীতি থেকে দূরে থাকে: বিপিন রাওয়াত}

পাশাপাশি কে সিভান আরও জানান, চন্দ্রযান-২-এর পর  চন্দ্রযান-৩ হবে ভারতের কাছে অন্যতম একটি মিশন। তবে চন্দ্রযান-২ এর অরবিটারটি এখনও কাজ করে চলেছে। এটি সাত বছর ধরে তথ্য সরবরাহ করতে থাকবে। চন্দ্রযান-২ এর মতো চন্দ্রযান-৩ তে ল্যান্ডার, রোভার এবং প্রপালশন মডিউল থাকবে। প্রকল্পটির জন্য ব্যয় হবে আড়াইশো কোটি টাকা। তামিলনাড়ুর তুতিকোরিনে দ্বিতীয় স্পেসপোর্টের জন্য জমি অধিগ্রহণ করে ২,৩০০ একর পরিমাপের জায়গায় কাজ শুরু করা হয়েছে।

এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং জানিয়েছেন ২০২০ সালে চন্দ্রযান-৩ লঞ্চ করতে চলেছে। যা ভারতের কাছে একটি গর্বের বিষয়।

bipasha

Related Articles

Back to top button
Close