fbpx
কলকাতাহেডলাইন

পুজোর পরেই হবে করোনার সুনামি, ঘাটতি হবে বেড! মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে জরুরি সতর্কবাতা চিকিৎসকদের

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: কিছুদিন আগে দ্রুতগতিতে বাড়ছিল সুস্থতার হার। কিন্তু মহালয়া ও বিশ্বকর্মা পুজোর পর থেকেই যেন ফের সুস্থতাকে কমিয়ে বিপুল হারে বাড়তে শুরু করেছে সংক্রমণ। তার মধ্যেই দেবী দুর্গতিনাশিনীর আরাধনার রাজ্য জুড়ে নিয়েছে রাজ্য সরকার।

 

কিন্তু কোভিড নির্দেশাবলী প্রয়োগে সচেতনভাবে ব্যবস্থা না নিলে পুজোর পরেই বিপুল হারে সুনামির মত সংক্রমণ বাড়তে পারে এবং তখন রাজ্যের চিকিৎসকদেরও কিছু করার থাকবে না। মুখ্যমন্ত্রীকে এই মর্মে চিঠি পাঠাল ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টরস ফোরাম।

 আর ১৪ দিন পরেই শুরু হতে চলেছে বাঙালির প্রাণের উৎসব ‘দুর্গাপূজা।’ সম্প্রতি সংক্রমণ বাড়তে শুরু করায় ইতিমধ্যেই রাজ্যের হাসপাতালগুলির ৩৮ শতাংশ ভর্তি হয়ে গিয়েছে। এরপর আবার বিপুল হারে সংক্রমণ হলে রাজ্যের হাসপাতালগুলিতে ভর্তির জায়গা থাকবে না। ঘটনার গুরুত্ব বোঝাতে কেরল এবং স্পেনেরও উদাহরণ দেওয়া হয়েছে।
বলা হয়েছে, ওনম উৎসবে কড়াকড়ি শিথিল করেছিল কেরল সরকার। তারপর সংক্রমণ সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে চলে আসে দক্ষিণের রাজ্যটিতে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে বসেছে। স্পেনে ফুটবল ম্যাচে দর্শক ঢুকতে দিয়ে একই বিপত্তি ঘটেছে।
বাংলায় তেমন যেন না হয়। মহালয়া ও বিশ্বকর্মা পুজোর পর থেকে বাংলায় সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এখন থেকেই দুর্গাপুজো নিয়ে সতর্ক হতে হবে।দুর্গাপুজোয় কড়া বিধিনিষেধ জারি করুন।
স্বাস্থ্য দফতরের অন্যতম পরামর্শদাতা তথা কোভিড-১৯ বিশেষজ্ঞ কমিটির অন্যতম সদস্য ডাক্তার বিআর সতপতি বলেছেন, আমরা সরকারকে বলেছি, মানুষের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিতে। এর জন্য তাদের তরফে ৭ দফা দাবিও জানানো হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী যাতে অবিলম্বে পুজোর জন্য জারি করা কোভিড নির্দেশাবলী প্রয়োগে সদর্থক ভূমিকা নেন, তার জন্য আবেদন জানিয়েছে চিকিৎসক সংগঠন।

Related Articles

Back to top button
Close