fbpx
একনজরে আজকের যুগশঙ্খকলকাতাপশ্চিমবঙ্গ

উপনির্বাচনের পরেই বিজেপির নয়া কমিটি, আসতে পারে বহু নতুন মুখ

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: রাজ্যে চার আসনে উপনির্বাচনের পরেই বদলাতে পারে দলের খোলনলচে। আর রাজ্য বিজেপির এই নতুন কমিটিতে জায়গা পেতে পারেন বহু নতুন মুখ। দলীয় সূত্রের খবর, অধিকাংশ তরুণ মুখই জায়গা পেতে চলেছেন সম্পাদক ও সাধারণ সম্পাদক পদে। শুধু তাই নয়, সংগঠনকে মজবুত করতে দক্ষিণবঙ্গের কমপক্ষে পাঁচ থেকে ছয়টি জেলার সভাপতি বদল নিয়েও আলোচনা চলছে।কোন কোন জেলায় সভাপতি বদল হতে পারে? আর কেনই বা এই রদবদল?

গেরুয়া শিবিরের অন্দরমহলের খবর, গত বিধানসভা নির্বাচনে দলের অত্যন্ত খারাপ পারফরম্যান্স হয়েছে এরকম জেলায় দলের সংগঠনকে ঢেলে সাজাতে সেখানে একাধিক রদবদলের ভাবনাচিন্তা রয়েছে। পুজোর মরশুম মিটলেই নতুন রাজ্য কমিটি ঘোষণা হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিজেপির নয়া রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। সেক্ষেত্রে কালীপুজো, ভাইফোঁটা মিটলে নতুন কমিটি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। বর্তমানে বালুরঘাটে নিজের লোকসভা কেন্দ্রে রয়েছেন সুকান্ত মজুমদার। আগামী ২০ অক্টোবর অর্থাৎ বুধবার কলকাতায় ফিরছেন তিনি। তারপর নতুন রাজ্য কমিটি নিয়ে তিনি শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনা করতে পারেন। আগামী ৩০ অক্টোবর খড়দহ, শান্তিপুর, গোসাবা ও দিনহাটা বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের পরেই দলের নতুন কমিটি ঘোষণা হতে পারে। এমনটাই মনে করছেন গেরুয়া শিবিরের একাংশ।

 

কারণ নয়া  কমিটি ঘোষণা হলে কোনও ক্ষোভ-বিক্ষোভ যদি দেখা দেয় তাহলে তার প্রভাব উপনির্বাচনে পড়তে পারে।সূত্রের খবর, দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী রাজ্য সভাপতির পরেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদ হল সাধারণ সম্পাদক। আর পাঁচজন সাধারণ সম্পাদকের‌ মধ্যে এবার তিনজন তরুণ মুখ বেছে নেওয়ার সম্ভাবনা।‌আবার রাজ্য সম্পাদক পদে অনেক তরুণ মুখকে জায়গা দেওয়া হবে। সেখানে উত্তরবঙ্গের একাধিক নেতা জায়গা পেতে পারেন। সহ-সভাপতি পদেও কয়েকজন নতুন মুখকে আনা হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। ভোটের সময় পারফরম্যান্স ঠিক ছিল না, এরকম কারা বাদ পড়তে পারেন তা নিয়েও শীর্ষস্তরে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। রাজ্য পদাধিকারীদের নামের তালিকা দিল্লির নেতৃত্বের কাছে অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে উপনির্বাচন মিটলেই।

 

দলের একাধিক বিধায়ক এবার রাজ্য পদাধিকারীর তালিকায় আসছেন। তবে রাজ্য থেকে চূড়ান্ত তালিকা যাওয়ার আগে রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার, সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা সেরে নেবেন বলেই খবর।অন্যদিকে, দক্ষিণবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায় সংগঠনকে শক্তিশালী করতে জেলা কমিটিতে রদবদল করা হতে পারে। সেক্ষেত্রে হাওড়া, হুগলি, দুই ২৪ পরগনা, বীরভূম, পশ্চিম মেদিনীপুর ছাড়াও আরও কয়েকটি জেলা রয়েছে। নিষ্ক্রিয়দের সরিয়ে যুবদের থেকে নতুন মুখ তুলে আনা হতে পারে দলের মূল সংগঠনে।

Related Articles

Back to top button
Close