fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জের, গৃহবধূকে হত্যা শিক্ষকের

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর: ধারাল অস্ত্র দিয়ে কোপ, তারপর আগুন লাগিয়ে এক গৃহবধূকে খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ালো অন্ডালের উখড়া গ্রামে। মৃতা বছর ৩৭ এর আইভী হাজরা। তিনি একজন গৃহবধূ ছিলেন। ঘটনায় অভিযুক্ত বিক্রম রায় কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সূত্রের খবর স্থানীয় একটি সরকারি প্রতিবন্ধী কেন্দ্রে শিক্ষক ও তার কাজ করেন বিক্রম বাবু। ‌ তিনি বিবাহিত, তার স্ত্রী ও শিক্ষকতার সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

জানা গিয়েছে স্থানীয় এলাকা কাজোরার হাজরাপাড়ায় ওই গৃহবধূ আইভী হাজরা সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল বিক্রম রায়ের। বিয়ের পর থেকেই তিনি নিজের বাড়িতেই থাকতেন আইভি দেবী। তখনই বিক্রম বাবু সঙ্গে গড়ে ওঠে তার বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক। জানা গিয়েছে বিক্রম বাবু কে বিয়ে করার জন্য বারবার চাপ দিচ্ছিলেন আইভি দেবী। কিন্তু বিবাহিত হওয়ায় বারবার টালবাহানা করছিলেন বিক্রম বাবু। শেষ পর্যন্ত এই টানাপোড়েন থেকে অপরাধের সূত্রপাত।

পুলিশ সূত্রে খবর মঙ্গলবার দুপুরে আচমকাই আইভী দেবীর বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হন বিক্রম রায়। সেখানে প্রথমে বাকবিতণ্ডা ও তারপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে আইভি দেবীর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন বিক্রম। নিজের নাতনিকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হন বৃদ্ধা ঠাকুমা মায়া রানী দেবী। গুরুতর আহত অবস্থায় ওনাকে ভর্তি করা হয় দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে অভিযোগ আইভি দেবীকে কুপিয়ে হত্যা করার পর তালাশ আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেন বিক্রম রায়। ঘটনাটি জানতে পেরে দ্রুত তৎপরতার সঙ্গে গতকাল মঙ্গলবার রাতেই বিক্রম বাবুকে গ্রেপ্তার করে উখড়া থানার পুলিশ। ডিসি অফিসের গুপ্তা জানান অভিযুক্ত বিক্রম রায় কে গ্রেফতার করা হয়েছে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

গৃহবধুকে এমনই নৃশংস খুনের অভিযোগ উঠল সহকর্মীর বিরুদ্ধে। নাতনিকে বাঁচাতে গিয়ে ছুরির কোপে আক্রান্ত ঠাকুমা। ঘটনায় পুলিশের হাতে ধৃত বমাল। মঙ্গলবার বিকালে এমনই রোমহর্ষক ঘটনাটি ঘটছে অন্ডালের কাজোড়ার হাজরা পাড়ায়।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মৃতার নাম আইভি হাজরা (৩৭)। অভিযুক্তের নাম বিক্রম রায়। পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উখড়া গ্রামের সুভাষ পাড়ার বাসিন্দা বিক্রম রায়। সেখানে প্রথম পক্ষের স্ত্রী ও ছেলে থাকে। খাঁন্দরার সরকারি প্রতিবন্ধী কেন্দ্রে শিক্ষকতার কাজ করেন তিনি। সেখানেই বিক্রমবাবুর বিবাহবহির্ভুত সম্পর্ক গড়ে ওঠে আইভিদেবীর সঙ্গে। স্থানীয় একটি হাইস্কুলে বিক্রমবাবুর স্ত্রী পার্টটাইম শিক্ষকতা করেন।

আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় দিনহাটার বিভিন্ন এলাকায় সোয়াব টেস্ট করা হল

অন্যদিকে, আইভিদেবীর সঙ্গেও তিনি অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন বিক্রম। মাস আটেক আগে আইভিদেবীকে তিনি বিয়ে করেন বলে মৃতার পরিবারের দাবি। এদিনের ঘটনায় জানা গেছে, অন্যান্য দিনের মতো মঙ্গলবার দুপুরেও বিক্রমবাবু কাজোরায় আইভিদেবীর বাড়ি যান। সেই সময় আইভিদেবী ছাড়াও বাড়িতে ছিলেন তাঁর ঠাকুমা মায়ারানী হাজরা। সেখানেই ধারাল অস্ত্র দিয়ে বিক্রমবাবু আইভিদেবীর উপর চড়াও হন বলে অভিযোগ। বাধা দিতে গিয়ে আহত হন মায়ারানী হাজরা। অভিযোগ, প্রথমে ধারাল অস্ত্র দিয়ে খুন করার পর আইভিদেবীর দেহটি বিক্রমবাবু পেট্রোল ঢেলে জ্বালিয়ে দেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে অন্ডাল থানার পুলিশ। ছুরিকাহত মায়ারানী হাজরাকে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করে। মায়ারানীদেবীর অভিযোগে মঙ্গলবার রাতে উখরার বাড়ি থেকে বিক্রমবাবুকে পুলিশ গ্রেফতার করে। সম্পর্কের টানাপোড়েনই কি খুন? না অন্য কোন কারণ রয়েছে? সেবিষয়ে বিস্তর রহস্যের দানা বেঁধেছে।

মৃতার আত্মীয় জীবন কুমার পান্ডা জানান,” বিয়ের পর আইভি কাজোড়ায় বাপের বাড়িতে থাকতেন। বিক্রমবাবু প্রায়ই আসা-যাওয়া করতেন। স্ত্রীর মর্যাদায় বাড়ীতে নিয়ে যাওয়ার জন্য বিক্রমকে বলত। বিক্রম তাতে টালবাহানা করত। তারপরই এই ঘটনা। অভিযুক্ত বিক্রমের কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।” এদিকে ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ডিসি অভিষেক গুপ্তা জানান,” অভিযুক্ত বিক্রম রায়কে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। তদন্ত চলছে।”

Related Articles

Back to top button
Close