fbpx
দেশহেডলাইন

সুশান্ত মামলায় জেরা পিছোতে আবেদন রিয়ার, খারিজ করল ইডি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  মুম্বই পুলিশে আগেভাগে নিজের বয়ান রেকর্ড করিয়ে এসেছিলেন অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তী। ভেবেছিলেন এ যাত্রা হয়তো পার পেয়ে গিয়েছেন। কিন্তু সেই স্বপ্ন ভঙ্গ হল যখন মুম্বই পা পড়ল বিহার পুলিশের। তারপর থেকে হাজিরা এড়ানোর জন্য কখনও সুপ্রিম কোর্টে ছুঁটছেন, কখনও আবার ক্যামেরার সামনে কান্না জুড়ে দিচ্ছেন। আজ তাঁর এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেটের সঙ্গে দেখা করার কথা রিয়া চক্রবর্তীর। এদিন ইডি আধিকারিকরা তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করবেন বলে সূত্রের খবর। তবে এই জিজ্ঞাসাবাদের তারিখ পিছিয়ে দিতে আবেদন করেন রিয়া চক্রবর্তী। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেট অবশ্য তাঁর এই আবেদন খারিজ করে দিয়েছে বলে সূত্রের খবর।

রিয়া চক্রবর্তীর আইনজীবী সতীশ মানেশিণ্ডে জানিয়েছেন, ‘এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেটের কাছে নিজের বয়ান রেকর্ড করানোর জন্য আরও কিছুটা সময় চেয়েছেন রিয়া। কারণ সুপ্রিম কোর্টে তাঁর আবেদনের শুনানি চলছে।’ সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সঙ্গে রিয়া চক্রবর্তীর যোগ আছে অভিযোগ করেছেন প্রয়াত বলিউড তারকার পরিবারের লোকজন। রিয়া সুশান্তের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের টাকা নিজের অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করে নিয়েছিলেন বলে অভিযোগ। সুশান্তের ওপরে মানসিক নির্যাতন চালাতেন বলেও অভিযোগ করা হয়েছে। সেই সূত্রেই রিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেট।

বৃহস্পতিবার সুশান্তের ঘনিষ্ঠ বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী এবং তাঁর ভাই-সহ বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়। সূত্রের খবর, দু-একদিনের মধ্যেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হতে পারে সুশান্ত আত্মহত্যা মামলার মূল অভিযুক্ত রিয়া চক্রবর্তীকে। FIR-এ নাম রয়েছে রিয়া চক্রবর্তী, ভাই শৌভিক চক্রবর্তী, বাবা ইন্দ্রজিত চক্রবর্তী, মা সন্ধ্যা চক্রবর্তী ছাড়াও স্যামুয়েল মিরান্ডা এবং শ্রুতি মোদি-সহ আরও এক অজ্ঞাতপরিচয়ের নাম। আত্মহত্যায় প্ররোচনা, অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র, চুরি, প্রতারণা-সহ আরও বেশ কয়েকটি অভিযোগ রয়েছে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে। জানা গিয়েছে, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা বিহার পুলিশের সঙ্গে সংযোগ রেখে তদন্ত চালাবে। এক বিবৃতিতে সিবিআই জানিয়েছে, “বিহার সরকারের অনুরোধে ও কেন্দ্র সরকারের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু তদন্তে মামলা রুজু করা হয়েছে। ৬ অভিযুক্ত ও অন্যান্যদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে।”

আরও পড়ুন: দিল্লির নাবালিকা ধর্ষণকাণ্ডে গ্রেফতার ১, নির্যাতিতার পরিবারকে আর্থিক সাহায্য মুখ্যমন্ত্রীর

সূত্রের খবর, সিবিআই-এর নির্দেশক হৃষিকেশ শুক্লার নির্দেশে বিশেষ তদন্তকারী দল বয়া সিট গঠন করা হয়েছে। দলের নেতৃত্ব দেবেন সিবিআইয়ের যুগ্ম নির্দেশক মনোজ শশীধর। দলে রয়েছেন দু’জন দুঁদে মহিলা আধিকারিক, ডিআইজি সিবিআই গগনদীপ গম্ভীর এবং সিবিআই এসপি নূপুর প্রসাদ। তবে মূল তদন্তকারী আধিকারিক সিবিআইয়ের এসপি অনিল যাদব। উল্লেখ্য, অগুস্তা-ওয়েস্টল্যান্ড কপ্টার কেলেঙ্কারি এবং বিজয় মালিয়ার বিরুদ্ধে হওয়া মামলার তদন্ত করেছে দলটি। জানা গিয়েছে, আপাতত দুটি দলে ভাগ হয়ে তদন্ত চালাবেন আধিকারিকরা।

জানা যায় যে সুশান্তের মৃত্যুর পর তাঁর ইমেল ব্যবহার করেছেন রিয়া। সুশান্ত শেষ পর্যন্ত কাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন প্রথমে তা খুঁটিয়ে দেখেন রিয়া। এরপর তিনি দেখেন সুশান্ত কোথায় কী মেল করেছেন। এরপরই ইমেলের পাসওয়ার্ড বদলে দেন। যাতে সুশান্তের পরিবারের কেউ না তা খুলতে পারেন। এছাড়াও সুশান্তের ব্যাংকের গুরুত্বপূর্ণ কিছু নথিও রিয়া ডিলিট করে দেন। মুছে ফেলেন বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ইমেলও। এই ঘটনায় হতবাক সিবিআই কর্তারাও।

এছাড়াও পরিবারের অভিযোগ ১৪ জুন সুশান্তের ব্যক্তিগত মোবাইল থেকে সকাল ৯.৩০ নাগাদ তাঁদের বাড়ির ফোনে একটি মিসকল আসে। পরে সুশান্তের বাবা ওই নম্বরে ফোন করলে তাঁর রাঁধুনী ফোন ধরেন এবং বলেন সুশান্ত ভুল করে তাঁর ফোন ডাইনিং এ ফেলে নিজের ঘরে গেছেন। আর তাঁরা অভিনেতার জন্য দুপুরের খাবার তৈরি করছেন। এরপরের ঘটনা সবারই জানা। এই ফোন তাহলে কে করল প্রশ্ন তুলেছেন অভিনেতার পরিবার।

Related Articles

Back to top button
Close