fbpx
দেশহেডলাইন

৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর কেন্দ্রীয় প্রকল্পের অধীনে চাকরি পেয়ে বহু মানুষ উপত্যকায় ফিরে এসেছে

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্ক: জম্মু-কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর উপত্যকায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কেন্দ্রীয় প্রকল্পের আওতায় প্রভূত উন্নতি হয়েছে। মোদী সরকারের কেন্দ্রীয় প্রকল্পের অধীনে প্রায় ২১০৫ জন অভিবাসী কাশ্মীরে ফিরে এসেছেন। বুধবার রাজ্যসভায় এই তথ্য জানান স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রাই।

এক প্রশ্নের লিখিত উত্তরে মন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন প্যাকেজের অধীনে ২০২০-২০২১ সালে মোট ৮৪১টি নিয়োগ করা হয়েছে। ২০২১-২০২২ সালে ১,২৬৪টি নিয়োগ হয়েছে। ২০১৯ সালে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার জম্মু কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল করে। তার পর থেকে কাশ্মীর উপত্যকায় পুনর্বাসিত কাশ্মীরি পণ্ডিতদের সংখ্যা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে এই তথ্যগুলি জানান নিত্যানন্দ রাই।

২০১৯ সালের অগাস্ট থেকে জম্মু ও কাশ্মীরে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের পাশাপাশি হিন্দুদের হত্যার বিষয়ে নিত্যানন্দ রাই বলেন, “৫ অগাস্ট, ২০১৯ থেকে ২৪ মার্চ, ২০২২ পর্যন্ত জম্মু ও কাশ্মীরে সন্ত্রাসীদের হাতে ৪ জন কাশ্মীরি পণ্ডিত এবং ১০ জন হিন্দু সহ মোট ১৪ জন নিহত হয়েছেন।”

মন্ত্রীর দেওয়া তথ্যানুসারে, ২০১৯ সালের ৫ অগাস্ট এবং ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে তিনজন হিন্দুকে হত্যা করা হয়েছিল; ২০২০ সালে একজন কাশ্মীরি পণ্ডিত সহ দুই ব্যক্তি, ২০২১ সালে তিনজন কাশ্মীরি পণ্ডিত এবং অন্য ছয় হিন্দু সহ মোট নয়জন নিহত হন।

উল্লেখ্য, ৩৭০ ধারা সংবিধানের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল ১৯৪৯ সালের ১৭ অক্টোবর। এই ধারাবলে জম্মুকাশ্মীরকে ভারতীয় সংবিধানের আওতামুক্ত রাখা হয় (অনুচ্ছেদ ১ ব্যতিরেকে) এবং ওই রাজ্যকে নিজস্ব সংবিধানের খসড়া তৈরির অনুমতি দেওয়া হয়। এই ধারা বলে ওই রাজ্যে সংসদের ক্ষমতা সীমিত। ভারতভুক্তি সহ কোনও কেন্দ্রীয় আইন বলবৎ রাখার জন্য রাজ্যের মত নিলেই চলে। কিন্তু অন্যান্য বিষয়ে রাজ্য সরকারের একমত হওয়া আবশ্যক। ১৯৪৭ সালে, ব্রিটিশ ভারতকে ভারত ও পাকিস্তানে বিভাজন করে ভারতীয় সাংবিধানিক আইন কার্যকর হওয়ার সময়কাল থেকেই ভারতভুক্তির বিষয়টি কার্যকরী হয়।

৫ অগাস্ট ২০২০, জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ হয়েছে। জম্ম, কাশ্মীর এবং লাদাখ থেকে ‘বিশেষ রাজ্যের’ তকমা তুলে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করে দেওয়া হয় এই তিন এলাকাকে।

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close