fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

শিখদের কাছে ক্ষমা চান… পাগড়ি কাণ্ডে মমতাকে বললেন আলি হোসেন

রক্তিম দাশ, কলকাতা: পাগড়ি বিতর্কে এবার সরব বঙ্গ বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চা। রবিবার ‘ মোর্চার সভাপতি আলি হোসেনের দাবি, ‘শিখদের কাছে ক্ষমা চান মুখ্যমন্ত্রী’। তাঁর মতে, ‘এই ঘটনায় সমগ্র শিখ সম্প্রদায়কে অপমানিত করা হয়েছে’।
আলি হোসেন বলেন,‘ আমাদের মোর্চার মধ্যে শিখ সম্প্রদায়ের মানুষরা আছেন। তাঁরা সহ আজ গোটা দেশের মানুষ এই ঘটনায় স্তভিত। বলবিন্দর সিং বিজেপি করেন না। তিনি একজন বিজেপির নেতার দেহরক্ষী হিসাবে নিজের কর্তব্য পালন করতে নবান্ন অভিযানে গিয়েছিলেন। অথচ তিনি যেভাবে হেনস্থা হলেন, তাঁর পাগড়ি খুলে দেওয়া হল সেটা শিখ সম্প্রদায়ের কাছে আঘাত লাগবেই। এবং তাঁরা গভীরভাবে মর্মাহত হয়েছে।’

সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি মনে করিয়ে দেন, ‘ শিখ সম্প্রদায়ের প্রধান পরিচিতি হচ্ছে তাঁদের পাগড়ি। আমরা যদি শিখ সম্প্রদায়ের ইতিহাস দেখি, তবে দেখা যাবে এই পাগড়িকে রক্ষা করতে তাঁরা মোঘলদের সঙ্গে লড়াই করেছিলেন। এই পাগড়ি রক্ষা করতে গিয়ে অসংখ্য শিখ শহিদ হয়েছিলেন। স্বাধীনতা আন্দোলনে তাঁদের ভূমিকা অস্বীকার করা যাবে না কোনও দিন। মাননীয়ার সরকারের এই আচরণ শিখ সম্প্রদায়ের কেউ মেনে নেবে না। আমাদের প্রতিনিধি হিসাবে অর্জুন সিং বিভিন্ন গুরুদ্বোয়ারে গিয়েছেন। আমরা সমবেদনা জানিয়েছি। এখন যে সাফাই গাওয়া হচ্ছে, ধ্বস্তাধ্বস্তি হয়েছে। তা ঠিক নয়। ভিডিও ফুটেছে পরিষ্কার, তাঁকে চুলের মুটি ধরে টানা হয়েছে। পাগড়ি খুলে দেওয়া হয়েছে। তাঁতে নিগ্রহ করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:আজ হাথরস কাণ্ডের শুনানি, কড়া নিরাপত্তায় এলাহাবাদ আদালত চত্বর

সংখ্যালঘু মোর্চার রাজ্য কমিটির সদস্য গুরনাম সিং বলেন,‘এই পাগড়ি গুরু গোবিন্দ সিংজি আমাদের শিখদের দিয়েছিলেন। এই পাগড়ি সবাইকে রক্ষা করার জন্য। আজ এই পাগড়ির ওপরে হাত উঠছে! এতে শিখরা ক্ষুব্ধ। এটা ঠিক হয়নি। কেন্দ্র সরকার,রাজ্য সরকার সবাইকে অনুরোধ করব এটা নিয়ে আইন করা উচিত যাতে আর কেউ এঘটনা ঘটনাতে সাহস না পায়। আমাদের কাছে কোনও মানুষকে মারধর করলে অতটা দুঃখ হয় না। যতটা পাগড়ি খুলে দিলে হয়। সর্দারজি যদি কোনও দোষ করে থাকেন, তার জন্য আইনিভাবে তাঁর শাস্তি হোক। কিন্তু পাগড়ি খুলে ধর্মীয়ভাবে অপমানিত করার চেষ্টা ঠিক নয়।’

Related Articles

Back to top button
Close