fbpx
কলকাতাহেডলাইন

আলিপুর চিডিয়াখানায় সতর্কতা, বাক্স বন্দি অ্যানাকোন্ডা, খাঁচাবন্দি বাঘ

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের ধাক্কায় টলমলে কলকাতা। বুধবার সকাল থেকে বেলা যতো বেড়েছে কলকাতায় বৃষ্টি ও ঝড়ো বাতাসের বেগ তত বেড়েছে। উল্টেছে ল্যাম্পপোস্ট, সিগন্যাল, ছিঁড়ে ফর্দাফাই বিজ্ঞাপনী ব্যানার। এই দুর্যোগে আলিপুর চিড়িয়াখানার বাসিন্দাদের নিরাপদে রাখতে কর্তৃপক্ষ ইতিমধ্যেই বেশ কিছু ব্যবস্থা নিয়েছেন।
আলিপুর চিড়িয়াখানার অধিকর্তা আশিসকুমার সামন্ত জানালেন, ‘ এই দুর্যোগে চিড়িয়াখানার পশু প্রাণীদের সুরক্ষিত রাখতে আমরা সতর্ক রয়েছি। বাঘ, সিংহ, হায়না, হাতিদের তাদের ঘরে সকালেই ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। শিম্পাঞ্জি বাবুকেও খাঁচায় রাখা হয়েছে।

বিষধর সাপ অ্যানাকোন্ডা, র্্যাটেল স্নেক, ভাইপার – এদের বাক্সে ভরে রাখা হয়েছে। তবে হরিণ, জেব্রা, জিরাফ এনক্লোজারে ছাড়া রয়েছে। জিরাফরা বৃষ্টি পড়লেই অবশ্য ওদের ঘরে ঢুকে পড়ে। আসলে ঝড় বৃষ্টিতে বাঘ, সিংহরা ভয় পায়। তাই ওদের খাঁচায় ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। পাখিরা অবশ্য সকাল থেকেই একটু বেশি চেঁচামেচি করেছে। ওঁরা বুঝতে পেরেছে প্রাকৃতিক কোন বিপর্যয় আসছে।’

আরও পড়ুন: ৬ মিটার পর্যন্ত জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা!

তিনি আরও জানালেন, ‘এই বিপর্যয় মোকাবিলার জন্য ৩৫ জনের একটি দল গড়া হয়েছে। এই দলে রয়েছেন জু কিপার, ইলেকট্রিশিয়ান, চিকিৎসক, মজুর। যদি ঝড়ের ধাক্কায় কোন গাছ পড়ে যায় তাহলে গাছ কাটবেন মজুররা। আর পশু প্রাণীরা যাতে ভয় পেয়ে খাঁচা থেকে বেরোবার চেষ্টা না করে সেই দায়িত্ব কিপারদের। কিপাররা শান্ত রাখবেন পশু প্রাণিদের। ওঁরা ১০/ ১২ জনের দলে ভাগ হয়ে নজরদারি করবেন। এছাড়াও আমরা নবান্নের কন্ট্রোল রুমের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখছি। প্রয়োজনে যাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়।’সব মিলিয়ে আলিপুর চিড়িয়াখানা বাসিন্দাদের নিরাপদে রাখতে সব রকম ব্যবস্থা নিয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close