fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ 

মিল্টন পাল, মালদা: কেন্দ্রীয় সরকারের প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠল গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূলের সদস্যের বিরুদ্ধে। ঘটনায় গ্রামবাসীরা পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ জানিয়ে ব্লক প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছে।বুধবার বাধ্য হয়ে গ্রামবাসীরা ঘরের দাবিতে বিক্ষোভ দেখায় ব্লক অফিসে। মালদার কালিয়াচক ৩ ব্লকের বিরনগর ২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। গোটা ঘটনায় বিডিওর কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে গ্রামবাসীরা।

জানা গিয়েছে, কালিয়াচক ৩নম্বর ব্লকের বীরনগর ২গ্রামপঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্য জিয়াউল হকের বিরুদ্ধে অভিযোগ। বেশ কয়েক মাস আগে প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘরে তালিকা আসে। অথচ ওই পঞ্চায়েত সদস্য জানায় ১০হাজার টাকা দিলে তবেই পাওয়া যাবে ওই ঘর। গ্রামের মানুষ ওই ঘরের জন্য অনেকেই সুদে টাকা ধার নিয়ে ওই টাকা দেয়। কয়েক মাস কেটে গেলেও সেই ঘরের টাকা গ্রামবাসীরা পাইনি। আর এরপর এদিন ঘরের দাবিতে ব্লক অফিসে বিক্ষোভ দেখায়।

গ্রামের বাসিন্দা সাদ্দাম শেখ জানায়, বীরনগর ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্য জিয়াউল হক প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার তালিকাভুক্ত মানুষদের কাছে ৩০ হাজার টাকা করে আদায় করেছে প্রশাসনের কিছু আমলাদের দেওয়ার নাম করে। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনা প্রকল্পের তালিকায় গ্রামবাসীদের নাম রয়েছে। সেই নাম টাকা না দিলে কেটে দেওয়া হবে এমনটাই ভয় জিয়াউল হক গ্রামবাসীদের।

ফলে প্রত্যেক জনের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা করে নেয় তৃণমূল সদস্য বলে অভিযোগ। এরপরেও তারা ঘর পাচ্ছে না। অনেকে সুদে ধার নিয়ে ঘরের টাকা দিয়েছে। ফলে বাধ্য হয়ে পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে কালিয়াচক ৩ ব্লক বিডিও গৌতম দত্তের কাছে গ্রামবাসীরা বিক্ষোভ দেখায় ও অভিযোগ দায়ের করেছে।

আরও পড়ুন:প্রেমিকা আকাঙ্খা শর্মাকে খুন করে পুঁতে দেওয়ার ঘটনায় যাবজ্জীবন উদয়নের

জেলা বিজেপির সহ সভাপতি অজয় গাঙ্গুলি বলেন, এই সরকার মানুষের টাকা লুঠ পাট আর চুরি করছে। যার ফলে সাধারণ মানুষ তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তার ওপর ঘুষ নিচ্ছে। অবিলম্বে সাধারণ মানুষকে ঘর ও ঘুষের টাকা ফেরত দিতে হবে। না হলে গ্রামবাসীদের নিয়ে বিজেপি আন্দোলনে নামবে।

পঞ্চায়েত সদস্য জিয়াউল হক বলেন, সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন। এক শ্রেণীর মানুষ রাজনৈতিক চক্রান্ত করে মুনাফার জন্য এই অভিযোগ তুলছে। যারা এই  চক্রান্ত চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে আইনত পদক্ষেপেরও কথা বলেছেন ওই পঞ্চায়েত সদস্য। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, বিরোধী রাজনৈতিক দলের প্রত্যক্ষ মদতে এই ঘটনা ঘটাচ্ছে কেউ।

কালিয়াচক ৩ ব্লক বিডিও গৌতম দত্ত জানান, অভিযোগ পেয়েছি।গ্রামবাসীদের যা অভিযোগ রয়েছে সমস্ত বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Related Articles

Back to top button
Close