fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভাতারে রাস্তার ধারের গাছ কাটায় পঞ্চায়েত সদস্যাকে নিগ্রহের অভিযোগ

জেলা প্রতিনিধি, ভাতার: ভাতারে রাস্তার ধারের গাছ কাটায় বাধা দেওয়ায় পঞ্চায়েতের এক সদস্যাকে নিগ্রহ করার অভিযোগ উঠল। ঘটনাটি ঘটেছে ভাতার ব্লকের নিত্যানন্দপুর পঞ্চায়েত এলাকার সন্তোষপুর গ্রামে। সোমবার জাহানারা খাতুন নামে ওই পঞ্চায়েতের সদস্যা এই নিয়ে সন্তোষপুর গ্রামের ৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযুক্তরা একই পরিবারের সদস্য বলে জানা গেছে। তবে অভিযুক্তপক্ষের দাবি তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ৷

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সন্তোষপুর গ্রামে রাস্তার ধারে একটি বাবলা গাছ কাটা নিয়ে বিবাদের সূত্রপাত। গ্রামের একটি পরিবার দিন দুয়েক ধরে তাদের জায়গার উপর কিছু কাটাকাটি করছিল।এদিন রাস্তার পাশে ওই বাবলা গাছটিও তারা কাটতে শুরু করেছিল। সেই সময় একই গ্রামের বাসিন্দা পঞ্চায়েত সদস্যা জাহানারা খাতুন গিয়ে গাছটি কাটতে বাধা দেন।
জাহানারা খাতুনের কথায়, “রাস্তার জায়গার উপর গাছটি হয়েছিল। তাই আমি গাছটি কাটতে বাধা দিয়েছিলাম । সেই কারনে অভিযুক্তরা আমাকে নিগ্রহ করে। অভিযুক্তদের হাতে থাকা করাতে আমার হাতও কেটে যায়।”

আরও পড়ুন:ট্রাম্পের মাধ্যমে করোনা সংক্রমনের কোনও ঝুঁকি নেই, দাবি হোয়াইট হাউসের

অন্যদিকে অভিযুক্তদের মধ্যে মোল্লা আলাউদ্দিন বলেন, “যে জায়গার ওপরে গাছটি রয়েছে ওই জায়গাটি আমাদের ছিল। প্রায় ১৩ বছর আগে আমরা জায়গাটি কিনেছিলাম। পরে ওই জায়গাটি রাস্তা হিসাবে ব্যাবহার হচ্ছিল। যদিও ওই জায়গাটি এখনও রাস্তা বলে রেকর্ড নেই। তখন গাছটি ছোট ছিল বলে কাটিনি।দিন দুয়েক আগে আমাদের জায়গায় অনান্য কিছু গাছ কাটছিলাম। তখন ওই বাবলা গাছটি কাটার সিদ্ধান্ত নিই৷ তবে গাছটি কাটার আগে পঞ্চায়েতের উপ প্রধানকে বিষয়টি জানিয়েও ছিলাম। উনি দেখেও গিয়েছিলেন।কিন্তু এদিন যখন গাছটা কাটতে যাই তখন ওই সদস্যা ও তার সঙ্গে দু একজন এসে ঝামেলার সৃষ্টি করেন। ” পাশাপাশি তিনি বলেন, “আমরা ওনাকে নিগ্রহ করিনি। আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে ।”

Related Articles

Back to top button
Close