fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

অন্তঃসত্ত্বা মহিলা ও তাঁর মাকে মারধোরের অভিযোগ শাসকদলের নেতা ও তাঁর স্ত্রী বিরুদ্ধে

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায় ,বর্ধমান: এক অন্তঃসত্বা মহিলা ও তার মাকে মারধরের অভিযোগ উঠলো শাসক দলের এক নেতা ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে বর্ধমান শহরের হাটুদেওয়ানের ডাঙ্গা পাড়ায়। এই ঘটনা বিষয়ে আক্রান্তের পরিবার বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে ।পুলিশ অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে। হটুদেওয়ান ডাঙ্গা পাড়ার বসবাস করেন রাফিয়া বিবি ও তাঁর পরিবার। দিনকয়েক আগে রাফিয়া বিবির অন্তঃসত্ত্বা মেয়ে সাবিনা বিবির সঙ্গে তৃণমূলের রায়ান অঞ্চলের সভাপতি সেখ জামালের বচসা হয়। পরে যদিও তার মিমাংসাও হয়ে যায়।

অভিযোগ সোমবার সকালে  অঞ্চল সভাপতির লোকজন ফের  রাফিয়া বিবির বাড়িতে চড়াও হয়। ঘরে ঢুকে গিয়ে তারা রাফিয়া ও তাঁর অন্তঃসত্ত্বা মেয়ে সাবিনাকে  ঘরথেকে বেরকরে এনে মারধোর করতে শুরু করে । সাবিনা অন্তঃসত্ত্বা থাকা সত্ত্বেও তার পেটে লাথি মার হয় বলে অভিযোগ । স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে গিয়ে  মা ও মেয়েকে  উদ্ধার করে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর রাফিয়াকে  ছেড়ে দেওয়া হলেও সাবিনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। অন্তঃসত্ত্বার পেটে লাথি মারার  ঘটনা নিয়ে এলাকার বাসিন্দারাও  ক্ষোভে ফুঁসছেন ।

আরও পড়ুন: করোনায় আক্রান্ত বিধাননগরের ডেপুটি মেয়র তাপস চ্যাটার্জি, ভর্তি হাসপাতালে

এদিন রাফিয়া বিবি বলেন , অঞ্চল সভাপতি সেখ জামালের স্ত্রী রবিবার সন্ধ্যায় তার ঘরে এসে মেয়ে সাবিনাকে গালি গালাজ করে। মেয়ে তার প্রতিবাদ করায় অঞ্চল সভাপতির স্ত্রী আমাদের উপর চড়াও হয়। স্থানীয় পার্টি অফিসে মীমাংসা হয়ে যায়।তারপরেও সোমবার সকালে হঠাৎই জামালের স্ত্রী দলবল নিয়েঙ এসে আমাদেরকে মারধর করতে থাকে। এলোপাতারি লাথি, ঘুষি মারে । অন্তঃসত্ত্বা সাবিনার পেটেও লাথি মারে। এই ঘটনায় মদত যোগায় জামাল । রাফিয়া বিবি বলেন ,ঘটনা সবিস্তার উল্লেখ করে তিন বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। যদিও অঞ্চল সভাপতি শেখ জামাল বলেন,তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হচ্ছো তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। তিনি দাবি করেন যখন ঝামেলা হয় তিনি বাইরে ছিলেন।

Related Articles

Back to top button
Close