fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমফান বিধ্বস্ত গোটা বাংলা, পাঁচ লক্ষ পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে সাহায্য: মুখ্যমন্ত্রী

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  আমফান বিধ্বস্ত প্রায় গোটা বাংলা। ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে ভেঙেছেকারও বাড়ি। আবার কারও চাষের জমি চলে গিয়েছে জলের তলায়। ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াল রাজ্য সরকার।  ঝড়ের তাণ্ডব দেখে অত্যন্ত চিন্তিত হয়ে পড়েন তিনি। রাজ্য ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে বলেই দুঃখপ্রকাশ করেছিলেন তিনি। প্রাণহানিও হয়েছে যথেষ্ট। এখনও পর্যন্ত আমফানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৮ জন। ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে মোট ৬২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার।ইতিমধ্যেই পাঁচ লক্ষ মানুষকে কুড়ি হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ১০০ দিনের কাজের মাধ্যমে তাঁদের আরও ২৮ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে।

নবান্নে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী এর মধ্যেই ৪০০-র মতো ব্রিজ মেরামত করে ফেলেছি আমরা। এই সব এলাকায় জেনারেটর তালিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে । বাকিদের কিছু সমস্যা আছে, সেই কারণেই বিদ্যুৎ চালু করতে সমস্যা হবে।৮৮ লক্ষ গ্রাহকের মধ্যে ৭০ লক্ষ গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ ফেরানো সম্ভব হয়েছে। ২৭৩টি সাব স্টেশন আমরা চালু করে ফেলেছি ।জুন এবং জুলাইয়ের টাকা রিলিজ করে দেওয়া হল ।  জয়বাংলা, জয় জহর সহ বিভিন্ন প্রকল্পে ১ হাজার কোটি টাকা ৫০ লক্ষ উপভোক্তার জন্য ২০০০ টাকা করে দেওয়া হবে ।কৃষকবন্ধু স্কিমের জন্য ৮০০ কোটি টাকা। পোল্ট্রি, গবাদি পশুর জন্য ১০০ কোটি রাখা হয়েছে ।গ্রামীণ রাস্তা সংস্কারের জন্য ১০০ কোটি টাকা ।সেচ দফতরের বাঁধ ভেঙে গিয়েছে, সেগুলি মেরামতির জন্য ১০০ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে ।টিউবওয়েলের জন্য দেওয়া হয়েছে ২৫০ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন: ৮ জুন থেকে সব সরকারি-বেসরকারি অফিস খুলে যাবে, নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী

এছাড়াও রাস্তা মেরামতি, টিউবওয়েল এবং স্কুলবাড়ি সংস্কারের জন্য অর্থবরাদ্দ করেছে রাজ্য। এই প্রসঙ্গে নাম না করে বিরোধীদের খোঁচা দিয়ে তিনি বলেন, ‘খালি থালা হাতে বসে আছি। ঘরে একটা ভাত আছে। সেই খাবারই ভাগ করে খাচ্ছি।’প্রবল শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় বিপর্যস্ত পাশে দাঁড়ানোর জন্য রাজ্যবাসীকে অনুরোধ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। শুকনো খাবার, পোশাক, বইখাতা দেওয়ার কথা বলেছেন তিনি। ইতিমধ্যেই বহু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এবং বহু মানুষ দুর্গতদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তবে তাঁদেরও রাজ্য সরকারের মাধ্যমে ত্রাণসামগ্রী পাঠানোর পরামর্শ দিয়েছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। টাকার পাশাপাশি ত্রাণসামগ্রীও দিতে পারেন । সাংবাদিকদের বলছি, আপনারাও একটু আবেদন করবেন, যাতে আমরা সাহায্য পাই।

Related Articles

Back to top button
Close