fbpx
কলকাতাহেডলাইন

হিন্দুরা সহিষ্ণু হলেও দুর্বল নয়, ফের সাধু হত্যায় কড়া প্রতিক্রিয়া হিন্দু সংহতির

প্রতিনিধি, কলকাতা: সাধু হত্যার ঘটনা আবারও ঘটলো, এবার উত্তর প্রদেশের বুলন্দশহরে। নিহত দুই সাধু হলেন জগন দাস (৫৫) ও সেবা দাস (৩৫)। সম্প্রতি পঞ্জাব, মহারাষ্ট্রের পালঘরে দুই সন্তের হত্যার ঘটনা ঘটেছে। প্রয়াত দুই সন্ত কল্পবৃক্ষ গিরি মহারাজ ও সুশীল গিরি মহারাজ , ওঁদের চালক নীলেশ তেলগালে। আর বারবার সন্তহত্যার ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে হিন্দু সংহতি। সংগঠনের সর্বভারতীয় সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য বলেছেন,’ বারবার হিন্দু সন্ন্যাসীদের হত্যার ঘটনা হিন্দুত্ববাদীদের সহিষ্ণুতার পরীক্ষা নিচ্ছে। এরপর অন্যরকম প্রতিক্রিয়া হলে হিন্দুদের কেউ যেন দোষ না দেন। হিন্দুরা সহিষ্ণু হলেও দুর্বল নন।’

সোমবার রাতে উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহরের অনুপশহর কোতোয়ালি এলাকার পাগোনা গ্রামের শিবমন্দিরে ঘুমন্ত অবস্থায় এই দুই সাধুকে খুন করা হয়। পুলিশ এই ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করেছে। মঙ্গলবার এই ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় হিন্দু সংহতির সর্বভারতীয় সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য বলেন, ‘ দেশের মধ্যে এখন দুটো শক্তি, একটা ‘ মেকিং ইণ্ডিয়া ফোর্স’ আর একটা ‘ ব্রেকিং ইণ্ডিয়া ফোর্স’। এই দ্বিতীয় দলটা এই ধরণের ঘটনা বারবার ঘটিয়ে একটা অস্থিরতা সৃষ্টি করতে চাইছে। এদের মধ্যে রয়েছে অতিবাম, মাওবাদী, মুসলমান, খ্রিস্টান, কংগ্রেসের একটা অংশ। এদের উদ্দেশ্য হলো এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের উত্তেজিত করে তোলা। আর উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা অনভিপ্রেত কোনো ঘটনা ঘটালে মোদি সরকারকে বিব্রত করা।’

আরও পড়ুন: সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য ঘিরে বিতর্ক, কী বলছে বিরোধীরা!

সমাজের বুদ্ধিজীবী অংশকে কটাক্ষ করেছেন হিন্দু সংহতির শীর্ষ নেতা। তাঁর প্রশ্ন, ‘ হিন্দুদের গায়ে হাত পড়লে কেন মৌন থাকেন বিশিষ্ট নাগরিক সমাজ? আর অন্য সম্প্রদায়ের ব্যাপারে তাঁরাই অতি সক্রিয় হয়ে ওঠেন। নিশ্চিত ভাবেই এই পরিস্থিতিটাই আমাদের কাছে একটা চ্যালেঞ্জ। আমরা এই চ্যালেঞ্জ নিলাম।’

Related Articles

Back to top button
Close