fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমফান বিক্ষোভ অব্যাহত সুন্দরবনে, ফ্রেজারগঞ্জ পঞ্চায়েত ভাঙচুরে ধৃত ১৩

বিশ্বজিত হালদার, কাকদ্বীপ:‌ আমফানে ক্ষতিগ্রস্থদের তালিকাতে স্বজনপোষণ ও দুর্নীতির অভিযোগে দক্ষিণ ২৪ পরগনার একাধিক পঞ্চায়েতে বিক্ষোভ অব্যাহত। সাগর, রায়দিঘির পর এবার নামখানার ফ্রেজারগঞ্জে। বুধবার বিকেলে নামখানার ফ্রেজারগঞ্জ পঞ্চায়েতে ক্ষতিপূরণের তালিকা নিয়ে ডেপুটেশন দেয় বিজেপি। সেই ডেপুটেশন চলাকালীন প্রচুর সাধারণ মানুষ পঞ্চায়েত ঘেরাও করেন। প্রচুর মহিলা উপস্থিত ছিলেন। হঠাৎ করে কয়েকজন মহিলা পঞ্চায়েতের পাঁচিল টপকে ভেতরে ঢুকে যায়।

এইসময় এলাকার কয়েকজন তৃণমূল কর্মী বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে। তখন দু’‌পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। দু’‌পক্ষের মধ্যে বেশ কিছুক্ষণ ধরে চলে সংঘর্ষ। পঞ্চায়েতে ঢুকে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় উত্তেজিত জনতা। পঞ্চায়েতের কর্মীদেরও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। খবর পেয়ে ফ্রেজারগঞ্জ থানার বিশাল বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছয়। পুলিশ বিক্ষোভকারীদের তাড়া করতে থাকে। ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় বিক্ষোভকারীরা। বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে আটক করে। পরে ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ধৃতদের বৃহস্পতিবার কাকদ্বীপ মহকুমা আদালতে তোলা হয়।

ধৃতদের বিরুদ্ধে ভাঙচুর, সরকারি কাজে বাধা-‌সহ একাধিক ধারায় মামলা রুজু করা হয়। অন্যদিকে বিজেপি এবং সিপিএমের পক্ষ থেকে নামখানা বিডিও অফিসেও ডেপুটেশন দেওয়া হয়। বুধবার দুপুরের বিক্ষোভ সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপি নেতা অভিজিৎ দাস-‌সহ অন্যরা। অন্যদিকে বৃহস্পতিবার সিপিএমের ডেপুটেশনে উপস্থিত ছিলেন নেতা কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়, রাম দাস-‌সহ অন্যরা। বিক্ষোভ ও ভাঙচুর নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর।‌

সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী মন্টুরাম পাখিরা বলেন,‘‌ প্রত্যেক ক্ষতিগ্রস্থ টাকা পাবেন। কিন্তু বিরোধীরা চক্রান্ত করে বাজারে কিছু নাম ছড়িয়ে দিচ্ছে। ফলে বিক্ষোভ হচ্ছে। কিন্তু মানুষকে ভুল বুঝিয়ে বেশী দিন রাজনীতি করা যায় না।’‌

বিজেপি নেতা অভিজিৎ দাস বলেন,‘‌ বিজেপি কর্মীরা ভাঙচুর চালায়নি। দুর্গত মানুষ ক্ষতিপূরণ না পেয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছে। তৃণমূল স্বজনপোষণ ও দুর্নীতি করায় এই বিক্ষোভ।’‌ সিপিএমের কান্তি গঙ্গোপাধ্যায় বলেন,‘‌ তৃণমূলের কাটমানি আর দুর্নীতির জেরে দুর্গত মানুষ আজ দিশেহারা। প্রশাসন দ্রুত স্বচ্ছতা বজায় রেখে ক্ষতিপূরণের তালিকা তৈরী করুক।’‌

Related Articles

Back to top button
Close