fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আর ৬ মাস বাদ স্বপন দেবনাথ ও অনুব্রত মণ্ডল বিকাশ দুবে হয়ে যাবে, হুঁশিয়ারি বিজেপির রাজুর 

নিজস্ব সংবাদদাতা, বর্ধমান: ক্ষমতায় এলে পুলিশকে দিয়ে পায়ের জুতো চাটা করাবেন বলে হামেশাই হুঁশিয়ারি দিয়ে থাকেন রাজ্য বিজেপির সহ সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার তিনি আরও এক ধাপ শুর চড়িয়ে একেবারে থানা জ্বালিয়ে দেবার হুঁশিয়ারি দিলেন। মঙ্গলবার দলের কর্মী ও সমর্থকদের সঙ্গেনিয়ে তিনি পূর্ব বর্ধমানের কালনা থানায় ডেপুটেশন কর্মসূচিতে অংশ নেন। সেখানেই পুলিশকে হুঁশিয়ারি দিয়ে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন ,‘বিজেপি কর্মী রবিন পালকে পিটিয়ে খুনের ঘটনায় মূল অভিযুক্তদের পুলিশ দু’দিনের মধ্যে গ্রেফতার না করলে থানা জ্বালিয়ে দেওয়া হবে।’ পাশাপাশি রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ ও বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে তিনি ক্রিমিনাল বলেও কটাক্ষ করেন। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েদেন স্বপন দেবনাথ ও অনুব্রত মণ্ডল সহ তৃণমূলের গুণ্ডারা আর ছয় মাস বাদ বিকাশ দুবে হয়ে যাবে। বিজেপি নেতার এমন মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন শাসক দলের নেতৃত্ব।

প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে, খবর গত ৫ ই সেপ্টেম্বর কালনার পাথরঘাটা গ্রাম নিবাসী বিজেপি কর্মী রবিন পালের বাড়ির সীমানায় থাকা একটি গাছ কাটা নিয়ে অশান্তি তৈরী হয়। অভিযোগ রবিনবাবু গাছ কাটার প্রতিবাদ করলে তাকে বাড়ি থেকে বের করে এনে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো পাশাপাশি লাঠি দিয়ে বেপরোয়া ভাবে পেটানো হয়। আশঙ্কাজমক অবস্থায় ওইদিন তাকে উদ্ধার করে কালনা মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই কিছু সময় পর রবিন পালের মৃত্যু হয়। বিজেপি কর্মী রবীন পালের মৃত্যুর ঘটনা জানাজানি হতেই ওই দিনে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কালনা থানা এলাকা। মৃতর ভাই দানু পাল স্থানীয় পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সুকুমার বাগ সহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে কালনা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। দায়ের হওয়া সেই অভিযোগের তদন্তে নেমে পুলিশ এখনো পর্যন্ত ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। তবে উপপ্রধান সহ মূল অভিযুক্তদের পুলিশ এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি। তাদের গ্রেফতারের দাবিতেই বিজেপির একের পর এক নেতা কালনায় এসে আন্দোলনে সামিল হচ্ছেন। গত মঙ্গলবার বিকালে কালনায় এসে বিজেপির রাজ্য যুব মোর্চার সভাপতি সৌমিত্র খাঁ সকল অভিযুক্তকে গ্রেফতারের দাবিতে সরব হন। ওই দিন সৌমিত্র খাঁ এই খুনের ঘটনার সিবিআই তদন্তেরও দাবি তোলেন। একই দাবিতে ডেপুটেশন দিতে এসে রাজ্য বিজেপির সহ সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন সিবিআই তদন্তের দাবি দুরে সরিয়ে রেখে কালনা থানা জ্বালিয়ে দেবার হুঁশিয়ারি দিলেন।

কালনা থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভ ও ডেপুটেশন কর্মসূচি ঘিরে এদিন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কালনা থানা চত্ত্বর। পুলিশের সঙ্গে তর্কবিতর্ক ও ধস্তাধস্তিও বেঁধে যায় বিজেপি নেতা কর্মীদের। সেখানেই বিজেপির পূর্ব বর্ধমান ( গ্রামীন ) জেলা সভাপতি কৃষ্ণ ঘোষকে পাশে নিয়ে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বীরভূম জেলার তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকেও তীর্যক ভাষায় কটাক্ষ করেন। রাজু বাবু বলেন ,“দিদির মোটা কেষ্ট বালি মাফিয়া। সেই কেষ্ট এখন ফুটোকেষ্ট হয়েগেছে। পাশাপাশি রাজ্যের মন্ত্রী তথা পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল সভাপতি স্বপন দেবনাথকেও তিনি ক্রিমিনাল ও বালি মাফিয়া বলে মন্তব্য করেন। রাজুবাবু তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি দিয়ে আরও বলেন , আরমাত্র ছয় মাস। বিজেপি ক্ষমতায় এলে তৃণমূলের যত বড়ই গুণ্ডা হোক, সে অনুব্রত মণ্ডল হোক বা স্বপন দেবনাথ বিকাশ দুবে হয়ে যাবে।

বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই বক্তব্যের তীব্র বিরোধীতা করেছেন তৃণমূলের রাজ্যের মুখপত্র দেবু টুডু। তিনি বলেন, বিজেপি উন্নয়নের রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয়। ওরা সন্ত্রাস ও হিংসার রাজনীতিতেই বিশ্বাসী। সেই কারণেই থানা জ্বালিয়ে দেবার হুমকি দিচ্ছে। দেবু বাবু আরও বলেন, বিজেপির নেতা মন্ত্রীরা গোটা দেশ টাকে লুঠ করছে, একের পর এক কেন্দ্রীয় সংস্থা বিক্রী করে দিচ্ছে। আবার বিজেপির লুঠেরাই তৃণমূল নেতাদের মাফিয়া বলছে। রাজ্যবাসী খুব ভালভাবেই জানে কারা আশল মাফিয়া ও লুঠেরা । ২০২১ শের ভোটেই রাজ্যবাসী লুঠেরা বিজেপিকে যোগ্য জবাব দিয়ে দেবে।

Related Articles

Back to top button
Close