fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

আর কয়েকঘন্টার অপেক্ষা, বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নীতীশ কুমারের নাম ঘোষণা হতে পারে আজ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: রাজনীতিকে কেন্দ্র করে সরগরম বিহার। সদ্য সমাপ্ত হয়েছে বিহার ভোট। আজ সেই বিশেষ দিন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নাম ঘোষণা হতে পারে নীতীশ কুমারের। আর কিছুক্ষণে মধ্যেই বিহার মুখ্যমন্ত্রীর নাম ঘোষণ হবে। রবিবার দুপুর ১২টা নাগাদ এই বৈঠক হওয়ার কথা।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দেন নীতীশ কুমার। রাজ্যপাল ফাগু চৌহানের সঙ্গে দেখা করে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেন তিনি। একই সঙ্গে রাজ্যপালকে বিদ্যমান বিধানসভা ভেঙে দেওয়ার অনুরোধও করেন তিনি। এই নিয়ে সপ্তমবারের জন্য বিহারের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিতে চলেছেন নীতীশ কুমার। ২০০০ সালে তিনি প্রথমবার মুখ্যমন্ত্রী হন। এরপর থেকেই নানান বার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিয়েছেন বিহারের এই অন্যতম রাজনৈতিক নেতা।

বিহারে রাজনৈতিক চাপান উতোর পরিস্থিতি মাঝে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বুধবার সন্ধ্যায় বিজেপি সদর দফতরে কর্মীদের স্পষ্ট জানিয়ে দেন, নীতীশ কুমারের অধীনে বিহারে এনডিএ সরকার গঠন করা হবে। ফলে বিহারে মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন নীতীশ -ই।

২০০০ সালের মার্চ মাসে, বাজপেয়ী সরকারের নির্দেশে নীতীশ প্রথমবারের জন্য বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হন। তার থেকে তার মুখ্যমন্ত্রী আসনে তাঁর ইনিংস অব্যাহত। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে তার দল দুর্বলভাবে সাফল্যের একদিন পর, ১৭ মে, বিহার রাজ্যপালের কাছে নীতীশ কুমার তার পদত্যাগ জমা দিয়েছিলেন। বিগত নির্বাচনের ২০ টি আসনের বিপরীতে মাত্র ২ টি আসন জিতেছিল। নির্বাচনে তার দলের খারাপ পারফরম্যান্সের নৈতিক দায়িত্ব গ্রহণ করে নীতীশ কুমার পদত্যাগ করেছিলেনস। জিতন রাম মাঞ্জি দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন।

আরও পড়ুন:ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড কোভিড হাসপাতালে, দগ্ধ হয়ে মৃত ১০

নীতীশ কুমার ফের ২০১৫ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি মুখ্যমন্ত্রীর গদিতে বসেন। উপ-মুখ্যমন্ত্রী তেজস্বী যাদবের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ চাপানো হলে নীতীশ কুমার তাকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করার জন্য বলেছিলেন। আরজেডি তা করতে অস্বীকার করেছিল এবং তাই নীতীশ কুমার ২৬ জুলাই ২০১৭ সালে পদত্যাগ করেছিলেন। এভাবে মহাজোটের অবসান ঘটল। তিনি প্রধান বিরোধী দল এনডিএ-তে যোগ দেন এবং কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই আবার ক্ষমতায় আসেন।

Related Articles

Back to top button
Close