fbpx
একনজরে আজকের যুগশঙ্খদেশ

কাশ্মীরে নিকেশ লস্করের আরও এক শীর্ষ কমান্ডার, শহিদ এক সেনা জওয়ানও

নিজস্ব প্রতিনিধি: ফের রক্ত ঝরল উপত্যকায়। সাম্প্রতিককালে কাশ্মীরে সন্ত্রাসবাদীদের কার্যকলাপ বহুগুণ বেড়ে গিয়েছে। বুধবার সেনা-জঙ্গি সংঘর্ষে শহিদ হলেন এক জওয়ান। জখম হয়েছেন আরও দু’জন। সেই সঙ্গে এনকাউন্টারে নিকেশ হয়েছে দুই লস্কর জঙ্গিও। এ নিয়ে গত দুই সপ্তাহে মোট ১৫ জঙ্গি খতম হয়েছে বলে জানিয়েছেন কাশ্মীর পুলিশের প্রধান।

দক্ষিণ কাশ্মীরের সোপিয়ান জেলায় বেশ কয়েকজন জঙ্গি লুকিয়েছিল বলে খবর। নির্দিষ্ট খবরের ভিত্তিতে অভিযান চালায় সেনাবাহিনী। গুলির যুদ্ধে নিকেশ হয় দুই জঙ্গি। তাদের মধ্যে একজন লস্করের শীর্ষ কমান্ডার। তার নাম আদিল ওয়ানি।

কাশ্মীর পুলিশ সূত্রে খবর, খতম হওয়া জঙ্গি উত্তরপ্রদেশের শ্রমিক আলি সাগিরকে হত্যা করেছিল। আরও এক জঙ্গিকে নিকেশ করা হয়েছে।  তবে এই এনকাউন্টারে এক সেনার মৃত্যু হয়েছে। কাশ্মীর পুলিশের আইজিপি বিজয় কুমার বলেন, “গত দু’সপ্তাহে ১৫ জন জঙ্গিকে নিকেশ করেছে যৌথবাহিনী। তাদের মধ্যে আদিল ওয়ানি অন্যতম। তিন জওয়ান জখম হয়েছিলেন। তাঁদের মধ্যে একজন শহিদ হয়েছেন।”

নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে জম্মু-কাশ্মীর। একদিকে চলছে সেনা-জঙ্গি সংঘর্ষ। অন্যদিকে, নিরীহ ভিন রাজ্যের শ্রমিকদের উপর লাগাতার আক্রমণ করছে পাক মদতপুষ্ট জঙ্গিরা।গতমাসেই পাক সেনার মদতে পুঞ্চ-রাজৌরি সেক্টর থেকে ভারতে অনুপ্রবেশ করেছিল দশ জঙ্গি। তাদের খোঁজে রাজৌরি সেক্টরে থেকেই নিরাপত্তা বাড়ানো হয়। গোটা এলাকা ঘিরে ফেলা হয়। এর মধ্যে একাধিকবার সেনা-জঙ্গির গুলির লড়াই হয়। কিন্তু জঙ্গিদের সঙ্গে সেই এনকাউন্টারে দুই জুনিয়র কমিশনড অফিসার-সহ নয় জওয়ান শহিদ হন। তার পাল্টা ছয় পাক জঙ্গিকে নিকেশ করে ভারতীয় সেনা। জঙ্গি দমনে ভারতীয় সেনাবাহিনী সাফল্য পেলেও, অনেক সেনার মৃত্যু হচ্ছে। এই বিষয়টি চিন্তায় ফেলেছে ভারতকে। উপত্যকা জুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা বহুগুণে বাড়ানো হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close