fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

জেলা বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতির পদ থেকে সরানো হল অনুরণ সেনাপতিকে

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঝাড়গ্রাম:   ঝাড়গ্রাম জেলা বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল অনুরণ সেনাপতিকে। আর তারপরেই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। বিজেপির আইটি সেলের সদস্য থেকে শুরু করে অনেকই সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা মন্তব্য করছেন। প্রতিবাদ জানিয়েছেন যুব মোর্চার অনেক কর্মী। দল বিরোধী কাজ করার জন্যই অনুরণ সেনাপতিকে সরানো হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলা সভাপতি সুখময় শতপথি।

এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় যুব মোর্চার অনেকে বিজেপির জেলা সভাপতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন। অনেকে আবার ঝাড়গ্রাম জেলার কালো দিন বলে উল্লেখ্য করেছেন। উল্লেখ্য লোকসভা নির্বাচনের আগে বিজেপির আইটি সেল সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ব্যাপক প্রচার চালিয়ে ছিল। কিন্তু যুব মোর্চার জেলা সভাপতিকে সরিয়ে দেওয়ার ঘটনায় সেই আইটি সেল থেকেই নানা প্রতিবাদ উঠছে সোশ্যাল মিডিয়াতে।ঝাড়গ্রাম জেলায় পঞ্চায়েত নির্বাচন এবং লোকসভা নির্বাচনে যুব মোর্চার সভাপতি অনুরণ সেনাপতি জেলার আনাচে কানাচে ঘুরে বেড়িয়েছেন এবং প্রচারে মুখ্য ভূমিকা নিয়েছিলেন বলে বিজেপির একাংশের দাবি। বিশেষ করে জেলায় যুবমোর্চার সদস্যদের উপর  অনুরণের প্রভাব যথেষ্ট। ভালো বক্তা, দক্ষ সংগঠক বলেও তিনি পরিচিত।

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি প্রার্থী জেতার পিছনে যুবমোর্চার সভাপতির গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা ছিল বলে সোশ্যাল মিডিয়াজুড়ে তাকে সরানোর পর এমনই দাবি করছেন বিজেপির একাংশ। অনুরণ সেনাপতিকে যুব মোর্চার সভাপতির পদ থেকে সরানোর পর এখনো নতুন কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি বলে জনানো হয়েছে দলের তরফে। ঝাড়গ্রাম জেলা বিজেপির সভাপতি সুখময় শতপথি বলেন “দল বিরোধী কাজ এবং দলীয় অনুশাসন না মানার জন্যই অনুরণ সেনাপতিকে দলের সব রকম পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। যেই এই ধরনের কাজ করবে তাদের সাথেও একই কাজ করা হবে।নতুন জেলা যুবমোর্চার সভাপতি রাজ্য থেকে ঘোষনা করা হবে।”অন্যদিকে সদ্য অপসারিত জেলা যুব মোর্চার সভাপতি অনুরণ সেনাপতির প্রতিক্রিয়া জানার জন্য তাকে বেশ কয়েকবার ফোন করা হলে তিনি ফোন ধরেন নি।তবে তাকে দলীয় পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া জন্য বিজেপির অন্দরে শুরু হয়েছে চাপান উতর।

Related Articles

Back to top button
Close