fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লোকাল থানার পুলিশ হচ্ছে এলাকার তৃণমূল নেতা: অর্জুন সিং

নিজস্ব সংবাদদাতা, উলুবেড়িয়া: এখন সবথেকে বড় তৃণমূল হচ্ছে পুলিশের কিছু লোক। শুধু তাই নয় লোকাল থানার পুলিশ হচ্ছে এলাকার তৃণমূল নেতা। রবিবার আমতার গাজীপুরে কৃষি আইন সমর্থনে আয়োজিত এক জনসভায় এইভাবেই পুলিশকে একহাত নেন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং।

এদিন তিনি বলেন প্রতিটি থানার ইন্সপেক্টর এখন স্থানীয় ভাবে তৃণমুল দলটাকে চালাচ্ছে। আর সেই কারণে কেউ থানায় অত্যাচারের অভিযোগ জানাতে গেলে পুলিশ অভিযোগ না নিয়ে তাকে তৃণমুল করার উপদেশ দেয়। যদিও সাধারন মানুষ পুলিশের এই ভূমিকায় অসুন্তুষ্ট বলেও দাবি করেন অর্জুন সিং। এদিন তিনি বলেন, আমি যতদিন তৃণমূল করতাম ততদিন দিদিমনির চোখে গুডবয় ছিলাম আর এখন বিজেপি করি বলে ওনার চোখে ব্যাড বয়। অর্জুন সিং অভিযোগ করেন, এখনও পর্যন্ত আমার নামে
৯৭টি মামলা হয়েছে, তবে আমি চ্যালেঞ্জ করছি আমরা নামে ১০০টি মামলা হলেও আমি মানুষের
কাছে গিয়ে তৃণমুলের দূর্নীতি তুলে ধরব।

তিনি বলেন, মৃত্যুকে আমি ভয় পাই না এবং একদিন আমি মরব। তবে আমি মরলে মানুষ বলবে বাংলাকে স্বাধীন করতে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে আর দিদিমনি মরলে সকলে বলবে একটা পাপ বিদায় হয়েছে। এদিন উত্তরপ্রদেশের ঘটনা নিয়ে অর্জুন সিং বলেন, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ একদিনের মধ্যে পুলিশ প্রশাসনের একাধিক ব্যক্তিকে সাসপেন্ড করে দেখিয়ে দিয়েছেন যদিও মুখ্যমন্ত্রীর সেই সৎ সাহস নেই বলেই এখনও পর্যন্ত এই রাজ্যে একজন ও সিভিক ভলেন্টিয়ারকে সাসপেন্ড করতে পারেননি। এদিন অর্জুন সিং অভিযোগ করেন, তৃণমূলের সর্বস্তরের নেতারা সবজায়গা থেকে টাকা তুলছে।

এদিনের এই অনুষ্ঠানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রায় শতাধিক কর্মী বিজেপিতে যোগ দেন। এদিনের এই অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির হাওড়া গ্রামীন জেলা সভাপতি শিবশঙ্কর বেজ, সহসভাপতি রমেশ সাঁধুখা সহ অন্যান্য তৃণমূল নেতৃত্ব।

Related Articles

Back to top button
Close