fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ক্রাইম ব্রাঞ্চের অফিসার পরিচয় দিয়ে চাকরির টোপ দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে ধৃত ১

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর: মুম্বই পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চের অফিসার পরিচয় দিয়ে প্রতারণার ফাঁদ। চাকরি দেওয়ার নামে টাকা নিয়ে ভুয়ো পরিচয় পত্র, জাল নিয়োগ পত্র দিয়ে প্রতারণার অভিযোগ। শেষমেশ কমিশনারেট পুলিশের জালে ধরা পড়ল বমাল। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে শিল্পশহর দুর্গাপুরে। পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, ধৃতের নাম প্রসেঞ্জিত চ্যাটার্জী, বাড়ী পুরুলিয়ারা মনিহারা গ্রামে। দুর্গাপুর বেঙ্গল অম্বুজায় বাড়ী ভাড়া নিয়ে থাকত। শুক্রবার রাত্রে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। পুলিশ তার কাছ থেকে বেশ কয়েকটি নকল পিস্তল, কিছু নিয়োগ পত্র, জাল স্ট্যাম্প উদ্ধার করেছে।

 

ঘটনায় জানা গেছে, অভিযোগকারী প্রবীর প্রামানিক বাঁকুড়ার শালতোড়ার বাসিন্দা। দুর্গাপুর সিটি সেন্টারে তার সেলুন রয়েছে। সেখান থেকেই  প্রসেঞ্জিত চ্যাটার্জীর সঙ্গে পরিচয়। প্রবীরবাবু জানান, ” মাস খানেক আগেই পরিচয় হয়। বিলাসবহুল গাড়ী নিয়ে আসত প্রসেঞ্জিতবাবু। নিজেকে ক্রাইম ব্রাঞ্চের বড় অফিসার পরিচয় দেয়। এবং পুলিশ ছাড়া বিভিন্ন সরকারি চাকরী করে দেবে বলে ১ লক্ষ টাকা নেয়। আরও একজনের কাছে ৯৫ হাজার টাকা নেয়। তার পর নানারকম পরিচয় পত্র তৈরী করে নিয়ে আসে। তাতে ভুল বানান দেখে সন্দেহ হয়। তাছাড়া কার্ডগুলো দেখে সন্দেহজনক মনে হচ্ছিল। তাই পুলিশে জানিয়েছিলাম।”

আর তার পরই পুলিশ জাল পাতা শুরু করে। শুক্রবার অভিযুক্ত প্রসেনজিতকে গ্রেফতার করে। জানা গেছে, তিনি যে গাড়ীটি ব্যাবহার করত, সেটি দুর্গাপুর পলাশডিহার একজনের কাছে ভাড়ায় নেওয়া। এদিন প্রসেঞ্জিতবাবু সাফাই দিয়ে জানান, “আসানসোলের একজন এসিপির চাকরীর নামে টাকা নিয়েছে। ট্রেনিংয়ের নামে ওই লাইটার রিভলবার গুলো দিয়েছে। প্র্যাক্টিস করার জন্য।”

যদিও ডিসি অভিষেক গুপ্তা জানান, “চাকরী দেওয়ার নামে প্রতারনা চক্র। আন্তঃরাজ্য যোগ রয়েছে বলে অনুমান। কয়েকটি ইমিটেশন রিভলবার আটক হয়েছে। সেগুলিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কিছু জাল নিয়োগ পত্র। কিছু স্ট্যাম্প ও প্যাড বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। আদালতে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।তদন্ত চলছে।” এদিকে শনিবার ধৃতকে দুর্গাপুর মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক ১০ দিনের পুলিশ হেপাজতের নির্দেশ দেন।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close