fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

গুরুং ফিরতেই পাহাড়ে অশান্তি, মোর্চার সমর্থকদের খুনের চেষ্টার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আশঙ্কা ছিলই, সেটা যে অমূলক নয় বুধবারই তার প্রমাণ মিলল। তিন বছর অজ্ঞাতবাসের পর একদা প্রতাপশালী নেতা বিমল গুরুং অজ্ঞাতবাস ছেড়ে ফিরে আসার কয়েকদিনের মধ্যে অশান্ত দার্জিলিং।বুধবার দার্জিলিংয়ের টাকভর এলাকায় জোর করে পার্টি অফিস খুলতে যায় বিমল গুরুংয়ের সমর্থকরা। তাতে বাধা দিলে মোর্চার যুব সদস্যের উপর কুকরি নিয়ে হামলা চালানো হয়। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার সভাপতি বিনয় তামাংয়ের অভিযোগ, দলের এক যুব সদস্য গুরুতর আহত। তিনি হাসপাতালের আইসিইউ-তে ভর্তি। মোর্চার এফআইআরের ভিত্তিতে ২ জনকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করা হয়েছে বলে খবর।

মোর্চার অভিযোগ, এদিন সকালে টাকভর এলাকায় বন্ধ থাকা গুরুংয়ের পার্টি অফিসটি খোলার চেষ্টা করেন তাঁর সমর্থকরা। বাধা দিতে যান মোর্চার এক যুব সদস্য। তাঁর উপর ‘নৃশংস’ হামলা হয় বলে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন বিনয় তামাং। তিনি মনে করেন, গুরুং সংক্রান্ত মামলা এই মুহূর্তে আদালতের বিচারাধীন, তাই পার্টি অফিস খোলাও বেআইনি। তাই বিমলের সমর্থকদের বাধা দেওয়া হয়। বিনয়ের অভিযোগ, তিন বছর পর ফিরেই পাহাড়ে অশান্তির বাতাবরণ তৈরির চেষ্টা করছেন বিমল গুরুং। পাহাড়বাসীর কাছে এই অশান্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে গুরুংকে একঘরে করে দেওয়ার আবেদন করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন: কোভিড প্রটোকল মেনেই রেলের চাকা গড়াল

প্রসঙ্গত, গত পঞ্চমীর দিন আচমকাই কলকাতায় হাজির হন অজ্ঞাতবাসে থাকা বিমল গুরুং। সাংবাদিক বৈঠক করে তৃণমূলকে একুশের যুদ্ধে সমর্থনের কথা ঘোষণা করেন। তৃণমূলও পাল্টা টুইট করে স্বাগত জানায় বিমল গুরুংকে। পাশাপাশি পাহাড়ে অশান্তি এড়াতে মোর্চা সভাপতি বিনয় তামাং এবং জিটিএ চেয়ারম্যান অনীত থাপাকে কলকাতায় ডেকে পাঠিয়ে আশ্বস্ত করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিনয় তামাং সাংবাদিক বৈঠক করে জানান, ‘গুরুং সিলেবাসে নেই’। পাহাড়ে তার চ্যাপ্টার ক্লোজড।” এরপর আবার পাল্টা দিয়ে বিমল গুরুং বিজেপিতে চলে যাওয়া ১৭ জন কাউন্সিলর ফের তাঁর সঙ্গে ফিরেছেন বলে দাবি তোলেন। তখনই আঁচ করা গিয়েছিল, বিমল গুরুং বনাম বিনয় তামাং সংঘর্ষ সময়ের অপেক্ষা।

Related Articles

Back to top button
Close