fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আসানসোল জেলা হাসপাতালের ল্যাব টেকনিশিয়ান সহ ৪ করোনা আক্রান্তর হদিশ

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: প্রথমে ফেয়ার প্রাইস মেডিসিন সপের কর্মী। পরে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের নিরাপত্তা রক্ষী। এবার আসানসোল জেলা হাসপাতালের প্যাথোলজিক্যাল ল্যাবের ল্যাব টেকনিশিয়ান করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন। রবিবার বিকালে ল্যাব টেকনিশিয়ানকে দূর্গাপুরের কোভিড ১৯ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
তবে প্যাথোলজিতে অন্য কোন কর্মী, টেকনিশিয়ান ও চিকিৎসকের করোনার সংক্রমণ হয়নি। তাদের সবার পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

গত ২৪ ঘন্টায় আসানসোল ও বার্ণপুরে আরও ৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বলে রবিবার পশ্চিম বর্ধমান জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা যায়। তিনজনকেই চিকিৎসার জন্য শনিবার রাতে দূর্গাপুরের কোভিড ১৯ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এই তিনজন আসানসোলের উষাগ্রাম, এসবি গরাই রোডের ইসমাইল মুচিপাড়া ও বার্ণপুরের ৮ নং বস্তি রেলগেট এলাকার বাসিন্দা। যার মধ্যে ২ জন আসানসোল জেলা হাসপাতালের আইসোলেশান ওয়ার্ডে ভর্তি ছিলেন। মুচিপাড়ার বাসিন্দা মহিলা জেলা হাসপাতালের ফিভার ক্লিনিকে এসেছিলেন। উপসর্গ দেখার পরে চিকিৎসক তার লালারস পরীক্ষার জন্য পাঠায়। রবিবার সকালে আসানসোল জেলা হাসপাতালের আইসোলেশান ওয়ার্ড, প্যাথোলজি ও এমারজেন্সি বিভাগ আসানসোল দমকল বিভাগের কর্মীরা এসে স্যানিটাইজেশন করেন। পরপর তিনদিন এই স্যানিটাইজেশন করা হবে বলে জানা গেছে।

আরও পড়ুন: লকডাউনে আর্থিক সংকট, কুয়ো কাটছে কলেজ ছাত্রী, পাশে দাঁড়াল প্রশাসন

রবিবার দুপুর পর্যন্ত পশ্চিম বর্ধমান জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত রোগীর ১৩৩ জন। তারমধ্যে ১০৫ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি এসেছেন। এই মুহুর্তে এ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ২৫ জন। মারা গেছেন ৩ জন বলে এদিন জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে, এতদিন আইসিএমআরের নির্দেশ মতো আসানসোল জেলা হাসপাতালের প্যাথোলজিতে ট্রুনেট মেশিনের মাধ্যমে সন্দেহজনকদের করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছিলো।শনিবারই স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে করোনা পরীক্ষার কনফার্মেশন কীট পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। সেই কীট দিয়েই এবার পরীক্ষা করা হবে।

Related Articles

Back to top button
Close