fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লকডাউনের সুযোগে মহুল গাছ কাটার চেষ্টা, রুখে দাঁড়াল স্থানীয়রাই

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: একদিকে চলছে বনমহোৎসব। অন্যদিকে, অবাধে গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে দুষ্কৃতীরা। লকডাউনের সুযোগ নিয়ে ফাঁকা রাস্তায় চলছিল গাছ কাটার কাজ। স্থানীয়রা বাধা দিতেই সেই সব কাটা গাছ ফেলে পালালো দুষ্কৃতীরা। আসানসোল মহকুমার বারাবনি ব্লকের জামগ্রাম পঞ্চায়েতের কাঁটাপাহাড়ি এলাকায় এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। প্রকাশ্য রাস্তায় দিনের আলোতেই চলছিল গাছ কেটে তা চুরি করে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা।

জানা গেছে, কাঁটাপাহাড়ি এলাকায় বেশ পুরোনো একটি মহুল গাছ কয়েকজন দুষ্কৃতী মিলে কাটছিল। স্থানীয় বাসিন্দারা জানতে পারেন যে, ওই গাছ কাটার জন্য কোনও বৈধ অনুমতি ছিল না বন দপ্তরের। এলাকার বাসিন্দারা থানায় খবর দিতেই, সেই কাটা গাছ ফেলে পালায় দুষ্কৃতীরাই। খবর দেওয়া হয় বন দপ্তরকে। বন দপ্তরের কর্মীরা এসে সেই গাছ বাজেয়াপ্ত করে নিয়ে যান।

এই ঘটনার ব্যাপারে জামগ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান কেশব রাউথ বলেন, কোনও গাছ কাটার অনুমতি পঞ্চায়েত থেকে দেওয়া হয় না। এইভাবে কেউ গাছ কাটছে, খবর পেলে আমরা ব্যবস্থা নিয়ে থাকি। লকডাউনের সুযোগ নিয়ে দুষ্কৃতীরা এই এলাকায় একটি মহুল গাছ কেটে চুরি করার চেষ্টা করেছিল। স্থানীয় বাসিন্দাদের চেষ্টায় তা হয়নি। তিনি আরও বলেন, যেখানে পঞ্চায়েত থেকে চারা গাছ বিলি করা হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় গাছ লাগানোর জন্য বারবার বলেছেন। সেখানে এই কাজ কখনই বরদাস্ত করা হবে না। এই বিষয়ে জেলা প্রশাসন ও বন দপ্তরকে আমরা অভিযোগ জানাব।

গাছ কাটার খবর পাওয়ার পর বারাবনির গৌরান্ডি বিট অফিসার সুমন্ত দাস ওই এলাকায় যান। তিনি আরও বলেন যে, কাটা গাছটিকে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close