fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কোভিড-মুক্ত হয়ে শিলিগুড়ি পুরসভায় প্রথম পা রাখলেন অশোক ভট্টাচার্য

কৃষ্ণা দাস, শিলিগুড়ি: কোভিড আক্রান্ত হওয়ার প্রায় দুমাস পর প্রথম কাজে যোগ দিলেন শিলিগুড়ি পুরসভার প্রশাসক অশোক ভট্টাচার্য। ডাক্তারি পরামর্শ মেনেই তিনি  শুক্রবার পুরসভায় এলেও এই ধারাবাহিকতা এখনই বজায় রাখতে পারবেন না বলে জানান। ডাক্তাররা তাকে ধীরে ধীরে কাজের সময় বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন।

সম্প্রতি কোভিডে আক্রান্ত হন অশোক ভট্টাচার্য। শিলিগুড়ি সংলগ্ন মাটিগাড়ার একটি বেসরকারী হাসপাতালে তার চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরেন তিনি। সুস্থ হওয়ারও প্রায় একমাস পর শুক্রবার প্রথম বাড়ি থেকে বের হন তিনি ।

এদিন সকালেই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের তিরোধান দিবস অর্থ্যাৎ ২২ শ্রাবণ উপলক্ষ্যে  শিলিগুড়ির বাঘাতীন পার্কে রবীন্দ্র মূর্তিতে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন করে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন করার পর শিলিগুড়ি পৌরসভায় পা রাখেন অশোকবাবু।

এদিন পুরসভায় এতদিন পর প্রথম এলেও যতটা সম্ভব পুরকর্মীদের সাথে দুরত্ব বজায় রেখেছেন তিনি। তবে পুরসভার কাজকর্ম কতটা কি হয়েছে সমস্ত বিষয়গুলি জানতে মিটিং এড়িয়ে বেশ কয়েকটা বিষয়ে খোঁজখবর নিতে কয়েকজন অফিসারদের আলাদা আলাদা করে তিন চারজন করে ভাগ করে ডেকে অনেকগুলো বিষয়ে আলোচনা করেন। খোঁজ খবর নেন কোথায় কি সমস্যা আছে। ডেঙ্গু পরিস্থিতি, কোভিড নিয়ে যা যা করণীয় তা ঠিকমতো হচ্ছে কিনা খোঁজ নেন। বিভিন্ন বিষয় প্রকল্পগুলো কতদুর এগোলো সহ এই পরিস্থিতিতে যার যা রিলিফ ও ভাতা পাওয়ার তা পাচ্ছ কিনা সেই সমস্ত বিষয়েই এদিন মুলত রিপোর্ট নেন তিনি। কথা বলেন টেলিফোন ও নগোরন্নয়ন মন্ত্রী ও সচিবের সঙ্গেও।

এদিকে তার এই দীর্ঘ দিন পৌরসভায় অনুপস্থিতির ফলে পৌরসভার কোনো কাজই থমকে নেই বলে তিনি জানান। প্রশাসকমন্ডলীর বাকি সদস্য যারা সুস্থ রয়েছেন তারা ধারাবাহিকভাবে কাজ চালিয়ে গিয়েছেন। পাশাপশি পুরকর্মী, অফিসার, ইঞ্জিনিয়ার সকলেই যথাযথ কাজ করে গেছেন বলে তিনি দাবী করেন। খোঁজখবর নেন প্রশাসকমন্ডলীর অন্যান্য কোভিড আক্রান্তদের সম্পর্কেও। এদিন  প্রশাসক অশোক ভট্টাচার্যের সঙ্গে  মুকুল সেনগুপ্তও প্রথম পুরসভার কাজে যোগ দেন। তিনিও কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন।

Related Articles

Back to top button
Close