fbpx
দেশহেডলাইন

দীর্ঘ টালবাহানার পর আজ মুখোমুখী গেহলট-পাইলট, কোন দিকে গড়াচ্ছে মরু রাজনীতি!

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: মরুরাজ্যে কয়েকমাস ধরে চলা গেহলট এবং পাইলটের মহানাটকের ইতি শচীন পাইলটের কংগ্রেস ত্যাগ করা এবং তার পরবর্তী সময়ে যেভাবে বদল এসেছে চিত্রনাট্যে তা নিঃসন্দেহে কৌতূহল তৈরি করেছিল সাধারণ মানুষের মনে। সেই সব মানুষ যাঁদের ভোটের জোরে বলিয়ান হয়েই ক্ষমতায় আসেন এই সব রাজনৈতিক নেতারা। ঘটছে। সমস্ত সংঘাত এড়িয়ে ঘর ওয়াপসি করেছেন কংগ্রেসের তরুণ নেতা শচিন পাইলট। যার ফলে চিন্তার মেঘ আপাতত সড়েছে মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের ওপর থেকে। ফলে রাজেশ পুত্রর বিরুদ্ধে সুর নরম করেছে পাইলট। তবে তাঁকে নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না গেহলট।

বিদ্রোহ ঘোষণার সময়ে সচিন পাইলট জানিয়েছিলেন, বার বার রাহুল গান্ধীর সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করেও সফল হননি তিনি। দলে সঠিক গুরুত্ব পাচ্ছেন না তিনি। রয়েছে বেশ কিছু ক্ষোভের জায়গাও। দীর্ঘ টালবাহানার পর অবশেষে সচিনের সঙ্গে আলোচনার জন্যে বসেন রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। সোমবার নয়াদিল্লিতে রাহুল এবং প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন রাজস্থানের প্রাক্তন উপ-মুখমন্ত্রী। তাঁদের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ কথা হয়। এর পরেই সচিন পাইলটের দলে ফেরার পথ প্রশস্থ হয়েছে। রাজস্থানের বিদ্রোহী বিধায়কদের অভিযোগ শোনার জন্য তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন সনিয়া গান্ধী। এই কমিটিতে রাখা হয়েছে প্রিয়াঙ্কাকেও।

রাহুল-প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে সাক্ষাতে নিজের একাধিক অভিযোগ তুলে ধরেন রাজস্থানের প্রাক্তন উপ-মুখ্যমন্ত্রী। যথাযথভাবে সেগুলি খতিয়ে দেখা হবে বলে আশ্বাস দেন রাহুল। এর রেশ ধরেই পরে পরে একটি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্তের কথা কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী। AICC-র তিন সদস্যের এই কমিটি সচিন পাইলট এবং রাজস্থানের অসন্তুষ্ট কংগ্রেস বিধায়কদের অভিযোগ খতিয়ে দেখবে। সেই অনুসারে পরবর্তী সময়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন এআইসিসি-র সাধারণ সম্পাদক কেসি ভেণুগোপাল।

আরও পড়ুন: করোনা আক্রান্ত রামমন্দির ট্রাস্টের প্রধান, আতঙ্ক প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে

এদিন সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে গেহলট জানান, আমরা আগের মতোই রাজ্যের জন্য কাজ করব। আমাদের বন্ধু যিনি চলে গিয়েছিলেন, তিনি আবার ফিরে এসেছেন। সমস্যা ছিল, তা সমাধান হবে। আমি আশাবাদী আমাদের মধ্যে যে সমস্ত মতপার্থক্য ছিল, তা যত দ্রুত সম্ভব দূর হয়ে যাবে এবং রাজ্যবাসীর সেবা করার জন্য এগিয়ে যাব। পাশাপাশি এদিন আরও বলেন, বিধায়কদের সঙ্গে টানা একমাস ধরে যা হয়েছে, তাতে ওঁরা মর্মাহত। আসলে ওঁনারা পরিস্থিতির শিকার। এতদিন ধরে যা ঘটেছে, যেভাবে হোটেলের পর হোটেল পরিবর্তন করে তাঁদের থাকতে হয়েছে, তাতে এমন প্রতিক্রিয়াই স্বাভাবিক। কিন্তু আপাতত বিধায়করা নিশ্চিন্ত পরিস্থিতি এখন অনেকটাই স্বাভাবিক।

দিল্লির এই মিটমাটের পর, আজ বৃহস্পতিবার মুখোমুখি হতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলোট এবং উপ-মুখ্যমন্ত্রী সচিন পাইলট । কংগ্রেসের সংসদীয় দলীয় বৈঠকেই সাক্ষাত্‍ হতে চলেছে হেভি ওয়েট এই দুই নেতার। প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাজস্থানের বিধানসভায় রয়েছে বিশেষ অধিবেশন।

Related Articles

Back to top button
Close